নয়াদিল্লি: ভোট বড় বালাই৷ লোকসভা নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পর এবার পাখির চোখ বিধানসভা৷ তার জন্য এখন থেকেই ভোটার মন জয় করার কাজ শুরু করে দিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷ অন্তত তাঁর সাম্প্রতিক ঘোষণা দেখে তো সেরকমই ইঙ্গিত মিলছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

সোমবার মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা, মহিলাদের যাতায়াতের কথা মাথায় রেখে দিল্লির বাস ও মেট্রোতে বিনামূল্যে পরিষেবা দেওয়া হবে৷ এমনিতেই মেট্রোর ভাড়া দিল্লিতে বেশ চড়া৷ সেই সূত্র ধরেই কেজরিওয়াল জানান, নিরাপদ দিল্লি গড়ে তোলার জন্য এই পদক্ষেপ জরুরি৷ তাই ডিটিসির বাস ও মেট্রোতে কোনও মহিলাকে ভাড়া দিতে হবে না৷

আরও পড়ুন : লন্ডনে নয়, চিকিৎসার জন্য আমেরিকা বা নেদারল্যান্ডসে যেতে পারবেন বঢরা

এক সাংবাদিক বৈঠকে কেজরিওয়াল বলেন মেট্রো বা বাসে নিরাপদ মহিলারা৷ ফলে এই সুবিধা তাঁদের দেওয়া উচিত৷ মহিলাদের মধ্যে খুব কম সংখ্যকই মেট্রোর ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করতে পারেন৷ বেশিরভাগই তা পারেন না৷ তাই সরকারের পক্ষ থেকে ভর্তুকি দেওয়া হবে৷ যারা টিকিট কিনতে পারবেন, তাঁরা কিনবেন৷ যারা পারবেন না, তাদের পাশে সরকার রয়েছে৷

এদিকে, এই সিদ্ধান্ত নিয়ে কেন্দ্র রাজ্য সংঘাত শুরু হয়েছে৷ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ, কেন্দ্রকে এই বিষয়ে অনুরোধ করার পরেও কোনও লাভ হয়নি৷ দিল্লি সরকারের পক্ষ থেকে ভাড়া না বাড়ানোর অনুরোধ করা হয়েছিল৷ তারা মানতে চায়নি৷

এমনকি মেট্রো কেন্দ্র রাজ্য যৌথ উদ্যোগের ফসল, সেক্ষেত্রে ভর্তুকির পরিমাণ আধাআধি হওয়া বাঞ্ছনীয়, কিন্তু এই প্রস্তাবেও কেন্দ্র সাড়া দেয়নি বলে অভিযোগ অরবিন্দ কেজরিওয়ালের৷

আরও পড়ুন : হিন্দি বাধ্যমূলক: তামিল নেতাদের পর সরব সিদ্দারামাইয়া-কুমারস্বামীরা

এদিকে এই নিয়ম আগামী দু-তিন মাসে জারি করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷ তবে দিল্লি সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷ আদৌ মেট্রোর ভাড়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত একক ভাবে কী দিল্লি সরকার নিতে পারে? কারণ মেট্রো রেল কর্পোরেশন যৌথ উদ্যোগ৷ তাই বিষয়টি বেআইনী বলেই মনে করছেন অনেকে৷ এতে দিল্লি মেট্রোর আর্থিক ক্ষতির কথাও তুলেছেন কেউ কেউ৷

দিল্লিতে মহিলা যাত্রীর সংখ্যা বেশ কয়েক লক্ষ। তাঁদের বেশিরভাগই যাতায়াত করেন মেট্রোতে৷ এঁদের প্রত্যেকের ভাড়া মকুব করে দিলে, কতটা ক্ষতি হবে সরকারি রাজস্বের, তা সহজেই অনুমেয়৷ হিসেব বলছে প্রায় ৭০০ কোটির ধাক্কা সামলাতে হতে পারে কেজরিওয়াল সরকারকে৷