জলপাইগুড়ি: ফের রাজ্যে এনআরসি আতঙ্কে মৃত্যুর ঘটনা। এক শিল্পীর আত্মহত্যার অভিযোগ। মৃত ব্যক্তির নাম মহম্মদ শাহাবুদ্দিন (৬৫। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়াল জলপাইগুড়িতে। পরিবারের অভিযোগ, বহু চেষ্টা করেও এনআরসি সংক্রান্ত কাগজ পত্র না পেয়ে অবসাদে ভুগছিলেন। আর সে থেকেই আত্মহত্যার ঘটনা বলে জানিয়েছে পরিবার। জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি দুলাল দেবনাথ জানিয়েছেন, মুর্শিয়া ও ভাওয়াইয়া শিল্পী ছিলেন।

মৃত মহম্মদ শাহাবুদ্দিনের বাড়ি বাড়ি জলপাইগুড়ি বাহাদুর অঞ্চলে। বাংলাতেও এনআরসি চালু করা হবে, এহেন বক্তব্যের পর থেকেই আতঙ্কে ভুগছিলেন শাহাবুদ্দিন। সেই অর্থে কোনও কিছু না থাকায় সমস্যা তৈরি হয়। এরপর থেকেই মানসিকভাবে তিনি অবসাদের মধ্যে শাহাবুদ্দিন ছিলেন বলে জানায় তাঁর পরিবার। বৃহস্পতিবার সকালে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী মহম্মদ শাহাবুদ্দিন। ইতিমধ্যে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন জলপাইগুড়ি পুলিশ সুপার অভিশেখ মোদী।

প্রসঙ্গত এই নিয়ে জলপাইগুড়ি জেলায় গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে এখনও পর্যন্ত এনআরসি আতঙ্কে পাঁচজন আত্মঘাতী হয়েছে। গত ২০ সেপ্টেম্বর ময়নাগুড়িতে মৃত্যু হয় অন্নদা রায়ের। ২৪ সেপ্টেম্বর ধূপগুড়ি বাসিন্দা শ্যামল রায় ও জলপাইগুড়ি বাহাদুর এলাকার সাবেদ আলী। এরা একই দিনে আত্মঘাতী হন। শুধুমাত্র এনআরসি আতঙ্কে। ২৩ শে অক্টোবর মাল মহকুমার ক্রান্তি এলাকার বাসিন্দা দেবারু মহম্মদ। এদিন জলপাইগুড়ি বাহাদুর এলাকার মহম্মদ শাহাবুদ্দিন। বারবার একই ঘটনায় চিন্তার ভাঁজ প্রশাসনের কপালে।

যদিও মুখ্যমন্ত্রী বারবার আশ্বাস দিয়েছেন যে বাংলার মানুষের এনআরসি নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প