স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: চটুল গানের দাবিতে অনড় বহিরাগত ছাত্ররা। তাই বাধ্য হয়েই মঞ্চ থেকে নেমে গেলেন সঙ্গীত শিল্পীরা। শুক্রবার ঘটনাটি ঘটেছে সিউড়ি বিদ্যাসাগর কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠানে।

হেতমপুর কলেজের পর ফের সিউড়ি বিদ্যাসাগর কলেজর বার্ষিক অনুষ্ঠানে শিল্পীকে অপমানিত হয়ে মঞ্চ থেকে নেমে যেতে হল। কিছুদিন আগেই হেতমপুর কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠানে একইভাবে চটুল গানের দাবিতে বাউল গান বন্ধ করে দেওয়া হয়। আবারো সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল সিউড়ি বিদ্যাসাগর কলেজে। শুক্রবার ছিল সিউড়ি বিদ্যাসাগর কলেজের বার্ষিক অনুষ্ঠান তথা নবীনবরণ উৎসব।

আরও পড়ুন : জানেন আপনার ৩০টাকায় কেনা পেঁয়াজের জন্য মাত্র ৫০ পয়সা পাচ্ছেন কৃষক

সেই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন বীরভূম জেলার বিশিষ্ট সঙ্গীত শিল্পী শান্ত ব্রত নন্দন ও তাঁর টিম। তাঁরা গান গাওয়ার জন্য মঞ্চে ওঠেন। প্রথম দিকে তারা বেশ কয়েকটি বাংলা এবং হিন্দি গান করেন। এরপর এই মঞ্চের সামনে যে সমস্ত শ্রোতারা বা দর্শকরা ছিল তাদের সেই ধরনের গান পছন্দ হয়নি। কেউ কেউ মঞ্চের মধ্যে উঠে যান এবং শিল্পীদের বলেন একটু ফাস্ট গান করতে।

সেখানেও তারা শ্রোতাদের চাহিদামতো গান করেন এবং সেই গান ও শ্রোতাদের পছন্দ হয় না। এর পর মঞ্চের মধ্যেই একপ্রকার গান বন্ধ করে দেওয়া হয়। শ্রোতারা যে ধরনের গান চাইছিলেন অর্থাৎ বহিরাগতদের চটুল হিন্দি গানের দাবি ছিল এমনটাই মনে করছেন সংগীত শিল্পীরা। মঞ্চের মধ্যে কলেজের যে সমস্ত অধ্যাপকরা ছিলেন তাঁরা ওই সঙ্গীত শিল্পীর সঙ্গে আলোচনা করেন।

আরও পড়ুন: ৩০০ টনের বিষ্ণমূর্তি তিনদিনে সরল মাত্র তিন’শ মিটার

এরপর এই সঙ্গীত শিল্পীরা মঞ্চ থেকে নেমে যান তাঁর টিম নিয়ে। এই ঘটনায় সঙ্গীতশিল্পী অপমানিত হয়ে তিনি একটি ফেসবুক পোস্ট করেছেন এবং তাতে বোঝা যাচ্ছে যে , যে ধরনের গান আজকাল পছন্দ সেই গান না করতে পারায় তাদেরকে কটুক্তির সম্মুখীন হতে হয় এবং তাঁরা বাধ্য হয়ে মঞ্চ থেকে নেমে যান।

শিল্পী শান্ত ব্রত নন্দন জানান, ”এই ধরনের ঘটনা আগে কোথাও এমন ঘটেনি। আমি সিউড়ি বিদ্যাসাগর কলেজ এর একজন প্রাক্তন ছাত্র , সুতরাং খারাপ একটু লাগছেই। পরে জানতে পারলাম বহিরাগত ছাত্ররাই মূলত নাচানাচির গানের জন্য এই আচরণ করেছিল।” বিদ্যাসাগর কলেজের এর অধ্যক্ষ তপন কুমার পরিচ্ছা জানান, যেহেতু কলেজে এখন ছাত্র সংসদ নেই তাই অধ্যাপকরা মিলে এই নবীন বরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন। সেখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল শান্ত ব্রত নন্দনের গ্রুপকে। উনিও এই ঘটনায় মর্মাহত।

Advertisements