তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: ছোলার ডালের অর্ধেক অংশে ত্রিশূল ধারিণী দশভূজা দুর্গা, বাহন সিংহ ও অসুর। এবার পুজোয় বড়সড় চমক দিলেন প্যাটনদা ওরফে ইন্দ্রনীল মুখোপাধ্যায়। বাঁকুড়া শহরের জুনবেদিয়ার বাসিন্দা ইন্দ্রনীল মুখোপাধ্যায়ের কাজে চমকে যাচ্ছেন সবাই। ছোলার ডালের উপর মাটি ও আঠার মিশ্রণ লাগিয়ে রঙ করেছেন তিনি।

বাঁকুড়ার জুনবেদিয়ায় স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে থাকেন ইন্দ্রনীল মুখোপাধ্যায়। তাঁর পোশাকি নাম ইন্দ্রনীল হলেও এলাকায় তিনি পরিচিত প্যাটনদা হিসেবেই। এবারই প্রথম নয়, শিল্পরসিক এই মানুষটি এর আগে তৈরি করেছেন একটি চালের উপর সরস্বতী প্রতিমা। দেড় সেন্টিমার কাঁচের শিশির উপর প্রভু যীশুর জন্ম বৃত্তান্ত,যা বর্তমানে পুদুচেরীর মিউজিয়ামে সংরক্ষিত রয়েছে। একই সঙ্গে ক্রিকেটার শচীন তেণ্ডুলকার, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের কাছে তাঁদের স্মরণীয় মুহূর্তের বোতলবন্দী মডেল তিনি তৈরি করে পাঠিয়েছেন।

জুনবেদিয়া এলাকায় বসবাসের আগে ইন্দ্রণীল মুখোপাধ্যায়দের বাড়ি ছিল বিশ্ব বিখ্যাত শিল্পী ও ভাস্কর রামকিঙ্কর বেইজের বাঁকুড়া শহরের পাঠক পাড়ার বাড়ির ঠিক পাশেই। রামকিঙ্কর বেইজের শিল্প কলার গল্প শুনে ছোটোবেলা থেকেই এই কাজে মন দেন তিনি। ছাত্রাবস্থাতেই বাবা মারা যাওয়ায় সংসার চালাতে এক সময়ের সৃষ্টির নেশা পেশায় পরিনত হয়েছে এই মানুষটির। শহর বাঁকুড়ার গণ্ডি ছাড়িয়ে জেলার বিভিন্ন প্রান্তের অসংখ্য ছাত্র ছাত্রীকে এখন তিনি শিল্পকলার পাঠ দিচ্ছেন।

শিল্পী ইন্দ্রণীল মুখোপাধ্যায় প্রথম জীবনে অঙ্কন শিল্পের উপর জোর দিলেও পরের দিকে শোলা, টেরাকোটা, গালা, আঠা, অ্যালুমিনিয়াম ব্যবহার ছোটো বোতলের মধ্যে ক্ষুদ্রাকার মূর্তি তৈরি শুরু করেন। এক সময় একটি বেসরকারি স্কুলে অঙ্কন শিক্ষক হিসেবে কাজ করলেও সৃষ্টির নেশা তাকে ওই জায়গা থেকে সরিয়ে আনে। বর্তমানে বিভিন্ন প্রদর্শণীর পাশাপাশি তাঁর শিল্প কর্ম বিক্রির জন্য শহরের সতীঘাট এলাকায় তাঁর দোকান দেওয়ার ভাবনা রয়েছে।

জুনবেদিয়ার বাড়িতে বসে শিল্পী এলাকায় পরিচিত প্যাটনদা ওরফে ইন্দ্রণীল মুখোপাধ্যায় বলেন, এবার পুজোয় অর্ধেক ছোলার ডালের উপর দুর্গা মূর্তি তৈরি করেছি। ছোলার উপর মাটি, আটা ও রঙ ব্যবহার অসুর দলনী দুর্গা ফুটে উঠেছে। সঙ্গে অবশ্যই রয়েছেন দেবী দুর্গার বাহন সিংহও। দীর্ঘ টানা কুড়ি বছর এই ধরণের কাজ করার পর চোখের সমস্যা তৈরি হওয়ায় আর এই ধরণের কাজ করা অসম্ভব হয়ে পড়ছে তাঁর পক্ষ। ফলে বোধহয় আবারো বড় কাজে ফিরে যেতে হবে। অনেকেই এই ধরণের কাজ শিখতে আসছে, তারা কাজ করছেও। এই ধরণের কাজ করার লোকের অভাবের কথা স্বীকার করেও তিনি আশাবাদী, আগামী দিনে তাঁর ছাত্ররা হয়তো আরও ভালো কাজ করবে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV