স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: হলদিয়া ব্লকের চাউলখোলা গ্রামের প্রতিটি পুকুরে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মাছ চাষের আওতায় আনার অভিনব উদ্যোগ গ্রহন করল হলদিয়া ব্লক মৎস্য দফতর৷

চাউলখোলা গ্রামে পঁচিশ লক্ষ টাকার নীল বিপ্লব প্রকল্পে গড়ে উঠছে মাছের হ্যাচারি ( কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র)। একদিকে যেমন কৃত্রিম মাছের প্রজনন কেন্দ্র গড়ে পূর্ব মেদিনীপুর সহ আশে পাশের জেলার মাছের চারার যোগান দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে মৎস্য দফতর৷ তেমনি চাউলখোলা গ্রামের মহিলাদের বিশেষ প্রশিক্ষণ সহ মাছের চারাপোনা দিয়ে বৈজ্ঞানিক মাছ চাষের অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে হলদিয়া ব্লক মৎস্য দফতর।

হলদিয়া ব্লকের চাউলখোলা গ্রামের পঞ্চাশ জন মহিলা এই প্রশিক্ষন শিবিরে অংশগ্রহন করেন। তাঁরা প্রত্যেকেই বিভিন্ন স্ব-সহায়ক দলের সদস্যা৷ আত্মা প্রকল্পের আর্থিক সহায়তায় অনুষ্ঠিত এই শিবিরে প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য ও জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত মৎস্য বৈজ্ঞানিক তথা ‘ফিসিং চাইমস’ ম্যাগাজিনের বাংলা বিভাগের এডিটর ডক্টর প্রতাপ মুখোপাধ্যায়, হলদিয়া ব্লকের মৎস্য সম্প্রসারন আধিকারিক সুমন কুমার সাহু, ময়না ব্লকের মৎস্য সম্প্রসারন আধিকারিক অভিষেক দাস প্রমুখ।

পুকুর-ডোবাগুলোতে মাছ চাষ করে পারিবারিক চাহিদা মিটিয়ে বাড়তি আয়ের পথ সুগম করতে প্রাথমিক ভাবে বসতবাড়ি সংলগ্ন পুকুরে সঠিক পদ্ধতি মেনে মাছ চাষের জন্য মাছের পোনাও দেওয়া হয়। এই দিন মাছের চারাপোনা তুলে দেন হলদিয়া পঞ্চায়েত সমিতির মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ গোকুল মাঝি ।

শিবিরে উপস্থিত মহিলারাদের স্বনির্ভর হওয়ার বার্তা দেন হলদিয়া ব্লকের বিডিও তুলিকা দত্ত ব্যানার্জী । উপস্থিত ছিলেন উপ মৎস্য অধিকর্তা ( পশ্চিমাঞ্চল) সিদ্ধার্ত সরকার। শিবিরে ওনারা জানান, গ্রামে-গঞ্জে সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য ছোট ছোট পুকুর-ডোবা। এই পুকুর-ডোবাগুলোতে একটু উদ্যোগ নিলেই এসব জলাশয়গুলোতে অতি সহজেই লাভজনকভাবে মাছ চাষ করা যায়।