পোর্টব্লেয়ার: পর পর ভূমিকম্প হচ্ছে দেশে। এবার তালিকায় আন্দামান। রাত ২ টো ১৭ নাগাদ কেঁপে ওঠে মাটি। রিখটার স্কেল অনুযায়ী ৪.৩ ম্যানিটিউড ভূমিকম্প অনুভব করেছে আন্দামানের দিগলিপুর।

দ্য ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি জানাচ্ছে, এই ভূমিকম্পের কেন্দ্র ছিল আন্দামানের দিগলিপুর থেকে ১৫৩ কিমি উত্তর পশ্চিমে।

ঘটনায় এখনও কোনও ক্ষয় ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। তবে দেশের মধ্যে বারংবার ভূমিকম্পের জেরে চাপা আতঙ্ক দানা বাঁধছে দেশবাসীর মনে। তবে কি এই ছোট ছোট ভূমিকম্প বড় কোনও প্রলয়ের ইঙ্গিত দিচ্ছে?

গত কয়েকদিন একই ভাবে ভূমিকম্পে কেঁপে আন্দামান। গভীর রাতেই এক কম্পন অনুভূত হয়। আতঙ্কে রাস্তায় নেমে আসে বহু মানুষ। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই ফের ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল আন্দামান। ফের একই সঙ্গে হঠাত কম্পনে হুড়োহুড়ি বেঁধে যায় বলেই জানা যাচ্ছে। আতংকে রাস্তায় নেমে আসে বহু মানুষ। যদিও এখনও পর্যন্ত বড়সড় ক্ষয়ক্ষতির খবর নেই। নেই হতাহতের খবরও।

গত কয়েকদিন ধরে একের পর এক রাজ্য কেঁপে উঠছে ভূমিকম্পে। দফায় দফায় কম্পন অনুভূত হচ্ছে উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলিতে। মিজোরাম, অসম সহ একাধিক রাজ্যে কয়েকদিনের ব্যবধানে এই ভূমিকম্প হয়েছে। শুধু তাই নয়, গত কয়েক দফায় কেঁপে উঠছে রাজধানী দিল্লি। আর অদূর ভবিষ্যতে দিল্লিতে বড়সড় ভূমিকম্প হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আইআইটি ধানবাদের সিসমোলজি বিভাগের জিওফিজিক্সের অধ্যাপক পিকে খান গত মাস খানেক এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, ‘একের পর এক ছোট মাত্রার কম্পন থেকেই বড় ভূমিকম্পের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। এই বিষয়ে কেন্দ্রের এবং দিল্লির সরকারের আগাম সতর্ক হওয়া উচিৎ বলেও বার্তা দিয়েছেন তিনি।

দিল্লি থেকে হরিদ্বার পর্যন্ত অঞ্চলে এই ভূমিকম্পের প্রবণতা বেশি বলে জানিয়েছেন তিনি। ওই অঞ্চলে প্লেট সরছে বছরে ৪৪ মিলিমিটার করে, যা অত্যন্ত চিন্তার। যদিও এখনও পর্যন্ত ভূমিকম্পের পূর্বাভাস দেওয়া সম্ভব হয় না।

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, আগামী ৮০ বছরে ভারত সম্মুখীন হতে পারে চরম তাপপ্রবাহ, বিধ্বংসী বন্যা, ভয়ানক শক্তিশালী ভূমিকম্পের। সৌদি আরবের বিশ্ববিদ্যালয় আব্দুলাজিজ-এর প্রফেসর মনসুর আলমাজৌরি বলেছেন, গোটা একুশ শতকের বাকি সময়েও হয়তো ভারত ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হবে।” যদিও এই সমস্ত কিছুই একটি অনুমান।

তবে এই মুহূর্তে করোনার থেকে বড়সড় বিপর্যয় আর কিছু হতে পারে না বলেই মনে করা হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ