মুম্বই: জনবহুল জায়গায় রাসায়নিক হামলার ছক ছিল আইএসের? এমনই আশঙ্কা করছে মহারাষ্ট্র এটিএস৷এটিএসের আধিকারিকদের ধারণা এই হামলা চালাতে উত্তরপ্রদেশের প্রয়াগরাজের কুম্ভ মেলাকে নিশানা করেছিল আইএস জঙ্গিরা৷

মহারাষ্ট্রের অ্যান্টি টেররিস্ট স্কোয়াড বা এটিএস জানাচ্ছে, আইএস জঙ্গি সন্দেহে ইতিমধ্যেই ৯জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ উম্মত-ই-মোহাম্মদিয়া নামের একটি জঙ্গি সংগঠনের সদস্য এরা৷ যাদের সঙ্গে আইএসের যোগ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷ ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গিয়েছে কোনও জনবহুল জায়গায় খাবারে বা পানীয় জলে বিষাক্ত রাসায়নিক মিশিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল এরা৷

আরও পড়ুন : বাংলায় ‘সরকারি’ সভা করতে আসছেন মোদী

এটিএসের আধিকারিকরা জানিয়েছেন জনবহুল স্থান বলতে কুম্ভমেলাকেই বোঝাচ্ছে৷ তদন্তকারীরা বলছেন কুম্ভমেলাতেই রাসায়নিক হামলা চালাতে চেয়েছিল জঙ্গিরা৷ ওই জঙ্গিদের কাছ থেকে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডের মতো ক্ষতিকর রাসায়নিকের নাম লেখা লেবেল সমেত বোতল উদ্ধার হয়েছে৷ তবে সেই বোতলে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড রয়েছে কীনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ বোতলটিতে কী ধরণের তরল রয়েছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে৷

এছাড়াও তাদের কাছ থেকে সাদা রংয়ের তরল পদার্থের বোতল, সাদা পাউডার, ছটি ছুরি, ছটি পেনড্রাইভ, ২৪টি মোবাইল, ছটি ল্যাপটপ, ছটি হার্ড ড্রাইভ, ডঙ্গল, মোডেম ও ওয়াই ফাই রাউটার মিলেছে৷ ধৃতদের মধ্যে একজনের নাম মজহর মালবারি৷ এই মজহর কুখ্যাত ডন রশিদ মালবারির ছেলে বলে জানা গিয়েছে৷ রশিদ মালবারি নিজে দাউদ ইব্রাহিমের ডি কোম্পানির শার্প শ্যুটার ছিল৷

আরও পড়ুন: ভেজাল তেল প্রস্তুতকারকের ডেরায় হানা এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের, ধৃত প্রতারক

বুধবার এটিএসের তরফ থেকে জানানো হয়, অনেকদিন ধরেই এই দলটার ওপরে নজর রাখা হয়েছিল৷ তারপর সুযোগ বুঝে গ্রেফতার করা হয়৷ হামলার ছক কষা প্রায় শেষ হয়ে এসেছিল বলেই মনে করছেন তদন্তকারীরা৷ ধৃতদের জেরা করে আরও তথ্য সংগ্রহের চেষ্টা করা হচ্ছে৷ এই দলের সঙ্গে আর কারা যুক্ত, তাদের সম্পর্কেও জানার চেষ্টা চালানো হচ্ছে৷ এছাড়াও মহারাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি এলাকা জুড়ে তল্লাশি চালাচ্ছে এটিএস৷

এলাকাগুলি হল থানের মুম্বরা টাউনশিপ, অম্রুত নগর, কউসা, মোতি বাগ ও আলমাস কলোনি৷ এছাড়াও ঔরঙ্গাবাদের কাইসার কলোনি, রাহাত কলোনি ও দামদি মহল৷ ইতিমধ্যেই ধৃতদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০(বি), ও ইউএপিএ ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ৷