ঢাকা: বাংলা বর্ষবরণ হোক বা মহান আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস একুশে ফেব্রুয়ারির দিন৷ পশ্চিমবঙ্গ সহ ভারতের বাংলাভাষী এলাকার বাসিন্দারা একসময় চোখ রাখতেন বিটিভি-তে৷ বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত এই দুটি বিশেষ দিনের অনুষ্ঠানের সরাসরি দেখতে৷ আবার ঢাকেশ্বরী মন্দিরের শারদোৎসবের অনুষ্ঠান এবং জমজমাট ঈদ ও ছোট টেলি নাটক সহ বাংলাদেশের যে কোনও ঘটনা জানতেও বিটিভি ছিল বেশ জনপ্রিয়৷ সেই টিভি সম্প্রচার ফের ভারতে সম্প্রচারিত হতে চলেছে৷

আগামী জুলাই মাস থেকে বিটিভি সম্প্রচারের সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে৷ এমনই জানিয়েছেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। রবিবার সচিবালয়ের সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন মন্ত্রী৷ তিনি বলেন, বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশন চ্যানেল বিটিভি ভারতে সম্প্রচার নিয়ে সরকার একটি চুক্তির চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে। এ লক্ষ্যে একটি কারিগরি দল আগামী ২৫ থেকে ২৭ জুন ভারত সফর করবে। তারা দেশে ফেরার পর বিটিভি কবে থেকে সেদেশে দেখা যাবে তা ঠিক করা হবে। এছাড়া বাংলাদেশ বেতারও ভারতে প্রচারের জন্য একটি চুক্তি হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিটিভি ভারতের দূরদর্শনে সম্প্রচারের লক্ষ্যে গত ৭ মে একটি ওয়ার্কিং এগ্রিমেন্ট সই হয়। ভারতের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী গত ১৯ জুন এই ওয়ার্কিং এগ্রিমেন্ট চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছেন। অর্থাৎ ভারতে বিটিভি প্রদর্শনের ক্ষেত্রে সরকারি পর্যায়ে সব আয়োজন সম্পন্ন হয়েছে।

বিবিসি জানাচ্ছে, বাংলাদেশ টেলিভিশন বিটিভির আধুনিকীকরণের জন্য সরকার ১৮৬৮ কোটি টাকা ব্যয় করতে যাচ্ছে। বিটিভির ইতিহাসে এটি অন্যতম বড় বাজেট।

বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) বাংলাদেশের সরকারি টেলিভিশন সংস্থা। ১৯৬৪ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক রাজধানী ঢাকা থেকে এই টিভি চ্যানেল সাদা-কালো সম্প্রচার শুরু করে। সে সময় এটি পাকিস্তান টেলিভিশন নামে পরিচিত ছিল। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের পর বাংলাদেশ তৈরি হয়৷ তখন এর নাম পরিবর্তন করে বিটিভি রাখা হয়৷ ১৯৮০ থেকে এটি রঙিন সম্প্রচার শুরু করে। ২০০৪ সালে বিটিভি বিশ্বব্যাপী সম্প্রচারের জন্য বিটিভি ওয়ার্ল্ড নামে উপগ্রহভিত্তিক চ্যানেল স্থাপন করে।