শ্রীনগর: বড়সড় অনুপ্রবেশের ছক বানচাল করল ভারতীয় সেনা। বুধবার রাতে নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করা হচ্ছিল বলে অভিযোগ। তবে সেই পরিকল্পনা ভেস্তে যায়। সূত্রের খবর, জম্মু কাশ্মীরের রাজৌরি জেলার নৌসেরা সেক্টরে টহলদারি চালাচ্ছিল সেনা।

তখনই সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ রেখায় সন্দেহজনক গতিবিধি টের পায় সেনা। সঙ্গে সঙ্গে গুলি চালায় ভারতীয় সেনা। মারা যায় দুই পাকিস্তানি অনুপ্রবেশকারী। আরেক জন গুরুতর আহত হয়েছে বলে খবর। সেনা জানিয়েছে, বেশ কিছুক্ষণ অনুপ্রবেশকারী জঙ্গিদের সাথে গুলির লড়াই চলে সেনার। আচমকাই ওই এলাকায় একটি ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণ হয়। এই ঘটনায় দুই জঙ্গি খতম হয়েছে। একজন গুরুতর আহত।

এখনও ওই জঙ্গিদের দেহ উদ্ধার করা যায়নি বলে খবর। মনে করা হচ্ছে, ওই জঙ্গিদের দলে আরও কয়েকজন ছিল, যারা এলাকা ছেড়ে যাওয়ার সময় দেহগুলিকে নিয়ে যায়। গোটা এলাকা ঘিরে ফেলা হয়েছে ও তল্লাশি চলছে বলে জানিয়েছে সেনা।

এদিকে, মঙ্গলবারই ক্রমাগত ভারত বিরোধিতা করে যাওয়ার পুরস্কার পেলেন কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা সৈয়দ আলি শাহ গিলানি। মঙ্গলবারই বর্ষীয়ান গিলানিকে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ সম্মান ‘নিশান-ই-পাকিস্তান’ পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা করে ইসলামাবাদ।

বছরের পর বছর ধরে পাকিস্তানের সঙ্গে যোগসাজশ রেখে চলার অভিযোগ গিলানির বিরুদ্ধে। ভারতে থেকেই ১৯৯০ সাল থেকে কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন হুরিয়ত কনফারেন্সের প্রধান সৈয়দ আলি শাহ গিলানি।

কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের নেতা সৈয়দ আলি শাহ গিলানি। প্রায় তিন দশক ধরে ভারতের মাটিতে থেকেই দেশবিরোধী কার্যকলাপে মদত দেওয়ার অভিযোগ গিলানির বিরুদ্ধে।

উপত্যকায় গত কয়েক দশক ধরে চলা বহু দেশবিরোধী কার্যকলাপে গিলানির যুক্ত থাকার অভিযোগ ওঠে। কাশ্মীরের যুব সম্প্রদায়কে ধর্মের নামে বিভ্রান্ত করে দেশবিরোধী কার্যকলাপে মদত দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে গিলানির বিরুদ্ধে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।