প্রতীকী ছবি

শ্রীনগর: ‘‘আমাকে প্রাণে মেরে ফেলতে পারত সেনা, কিন্তু তারাই আমার জীবন বাঁচিয়েছে৷’’ স্বীকারোক্তি এক লস্কর জঙ্গির৷ সম্প্রতি তিন কাশ্মীরি নাগরিক খুনে নাম জড়ায় ওই জঙ্গির৷ তাকে বাগেও আনে নিরাপত্তা বাহিনী৷ কিন্তু ওই জঙ্গিকে প্রাণে মারতে চায়নি সেনা ও কাশ্মীর পুলিশ৷ বদলে সমাজের মূল স্ত্রোতে ফিরে আসার আবেদন করা হয়৷ এখন তাই অস্ত্র ত্যাগ করে অন্যান্য জঙ্গিদের সমাজের মূল স্ত্রোতে ফিরে আসার আবেদন জানিয়েছে ওই জঙ্গি৷

এজাজ গুজরি নামে ওই লস্কর জঙ্গি এখন বারামুল্লা জেলার পুলিশ হেফাজতে আছে৷ সম্প্রতি তার একটি ভিডিও প্রকাশ্যে আসে৷ সেখানে ওই লস্কর জঙ্গি ‘বিপথে যাওয়া’ কাশ্মীরি যুবকদের অস্ত্র ত্যাগ করে পরিবারের কাছে ফিরে যাওয়ার আবেদন জানিয়েছে৷ বলেছে, ‘‘তোমরা ভুল পথে চলে গিয়েছ৷ বাড়ি ও পরিবারের কাছে ফিরে যাও৷’’ ওই লস্কর জঙ্গি জানিয়েছে, জঙ্গিরা পরিবার ও বাড়ি ঘর ছেড়ে জঙ্গলে দিন-রাত কাটায়৷ নাসির আমিন নামে এক জঙ্গির কথা উল্লেখ এজাজ গুজরি জানিয়েছে, ‘‘তোমার মা অসুস্থ৷ বাড়ি ফিরে যাও৷’’

ভিডিওতে ধৃত জঙ্গি দাবি করেছে, বারমুল্লাতে প্রথমে তারাই নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে৷ কিন্তু তার পরেও নিরাপত্তা বাহিনী পাল্টা জবাব দেওয়া শুরু করেনি৷ সেদিনের অভিযানের কথা মনে করে এজাজ জানিয়েছে,‘‘আমি ঝোপের আড়ালে লুকিয়ে ছিলাম৷ তখন আমাকে গ্রেফতার করা হয়৷ সেই সময় নিরাপত্তা বাহিনী চাইলে আমায় গ্রেফতার করতেই পারত৷ কিন্তু ওরা আমার জীবন বাঁচিয়েছে৷’’

উপত্যকায় অশান্তি পাকানোর পিছনে পাকিস্তানের হাত রয়েছে বলে দাবি করে ধৃত জঙ্গি৷ জানিয়েছে, ‘‘যেদিন আমি ধরা পড়ি ওই দিন সকালে পাকিস্তানের তরফ থেকে বলা হয়েছিল উপত্যকায় অশান্তি ছড়িয়ে দিতে হবে৷ আমাদের বলা হয়েছিল সেনা এখানে অকথ্য অত্যাচার করছে৷ কিন্তু এসব সত্যি নয়৷ এগুলো পাকিস্তানের ষড়যন্ত্র৷’’