নয়াদিল্লি:  বালকোট এয়ার্সট্রাইক এর পর প্রথমবার মুখোমুখি হচ্ছেন সেনা কর্তারা। পাক সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে অফিসারদের সঙ্গে আলোচনা করবেন খোদ সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত।

এই সপ্তাহে শুরু হচ্ছে সেনাবাহিনীর সেই বিশেষ বৈঠক। ২৭ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে এয়ার স্ট্রাইক চালানোর পর এই প্ৰথম স্থলবাহিনী ও বায়ুসেনার আধিকারিকরা মুখোমুখি হবেন। সূত্রের খবর, আগামিদিনে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আর কি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে, সেই ব্যাপারে আলোচনা হবে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় সন্ত্রাসবাদী হামলার পালটা প্রত্যাঘাতেই ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের বালাকোট অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদী সংগঠন জইস- এ- মহম্মদের প্রশিক্ষণ শিবিরে হামলা চালায় ভারতীয় বায়ুসেনা। হামলার পর থেকেই দু’দেশের সরকার এবং মিডিয়ার একাংশ বিভিন্ন পরিসংখ্যান তুলে ধরে। মৃতের সংখ্যা ৩০০ থেকে ৬০০ অবধিও ঘোষণা করা হয়। যদিও ভারতীয় বায়ু সেনার পক্ষ থেকে মৃতদের সংখ্যা নিয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়নি।

১৯ মিনিটের ‘এয়ারস্ট্রাইকে’কেঁপে গিয়েছিল পাক সেনা এবং প্রশাসন৷ প্রাক্তন ভারতীয় সেনাকর্তারা সাফ জানান, বালাকোট জায়গাটি ইসলামাবাদের সেনা হেড কোয়ার্টার বা GHQ থেকে মাত্র ১০৭ কিলোমিটার দূরে৷ ওই দূরত্ব অতিক্রম করে GHQ নিশ্চিহ্ন করতে ভারতীয় বায়ুসেনার কতই বা সময় লাগতো — হয়তো আরও ২০ মিনিট৷

প্রসঙ্গত উরি থেকে বালাকোটের দূরত্ব ৮১.৪৭ কিমি।