নয়াদিল্লি: ভারতীয় সেনার ধৈর্য্যের পরীক্ষা নিচ্ছে চিন। প্যাংগং লেকের ফিঙ্গার পয়েন্ট এবং দেপসাং উপত্যকা থেকে সেনা সরাতে রাজি নয় চিন। সামরিক ও কূটনৈতিকস্তরে দফায়-দফায় বৈঠকেও গলেনি বরফ। ভারতীয় ভূখণ্ডে ঘাঁটি গেড়ে বসে রয়েছে চিন সেনা। চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মির এই আচরণে যারপরনাই ক্ষুব্ধ ভারত। এবার ভারতীয় সেনা কমান্ডারদের ‘যুদ্ধ প্রস্তুতি’ নিয়ে রাখার নির্দেশ দিলেন সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে।

তিন মাস অতিক্রান্ত। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে ভারতীয় ভূখণ্ড ঘাঁটি গেড়ে বসে রয়েছে চিনা সেনা। চিনের সঙ্গে দফায়-দফায় সামরিক ও কূটনৈতিকস্তরে আলোচনা চালাচ্ছে ভারত। কিন্তু তাতেও লাভ হচ্ছে না।

ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে সরতে চাইছে না চিন সেনা। দিল্লির ধৈর্য্যের পরীক্ষা নিচ্ছে বেজিং। সীমান্তে শান্তি ফেরাতে নিঃশর্তে চিনকে সেনা প্রত্যাহারের দবি জানিয়ে চলেছে ভারত। তবে সেকথায় আমলই দিচ্ছে না চিন।

গালওয়ান, হটস্প্রিং, ফিঙ্গার এরিয়া ফোর থেকে সেনা সরালেও ভারতীয় ভূখণ্ডের প্যাংগং, দেপসাংয়ে এখনও ঘাঁটি গেড়ে বসে রয়েছে চিনা সেনা। তাই এবার ভারতীয় সেনাকেও সবরকম প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে নির্দেশ দিলেন সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে। ভারতীয় সেনার কমান্ডারদের ‘যুদ্ধ প্রস্তুতি’ নিয়ে রাখার নির্দেশে দিয়েছেন সেনাপ্রধান।

সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর পরিস্থিতি সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে গত কয়েকদিনে সেনাপ্রধান লাদাখ থেকে অসম পর্যন্ত প্রতিটি এলাকায় গিয়েছেন।

কর্তব্যরত সেনা কমান্ডারদের সঙ্গে তিনি বৈঠক করেছেন। সিকিম, অরুণাচলে চিন লাগোয়া সীমান্ত এলাকার পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন কমান্ডারদের সঙ্গে। সবরকম পরিস্থিতির মোকাবিলায় ভারতীয় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও