স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল হাওড়া ময়দান। অভিযানে বাধা পেয়েই পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টির পাশাপাশি বোমা ছুঁড়তে শুরু করে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে প্রথমে লাঠিচার্জ করে পুলিশ।

কিন্তু তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটাতে শুরু করে পুলিশ। ফলে কিছুটা হলেও ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে বিজেপি কর্মীরা। ওই সময়ে মল্লিকফটকের কাছে বিজেপির এক কর্মীর কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলে দাবি পুলিশের। ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে সকাল থেকেই উত্তেজনার পারদ চড়ছে রাজ্যে। দুপুর ১২টায় থেকে মিছিল শুরু হওয়ার কথা থাকলেও, মাঝপথেই অনেক জায়গায় বিজেপি নেতাদের গাড়ি আটকে দেওয়া হয়েছে বলে খবর। তবে তাতে পিছু হটা তো দূর, বরং ঘুরপথেই নবান্নের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন বিজেপি নেতারা।

তবে তাঁরা যাতে নবান্নের কাছে ঘেঁষতে না পারেন, তার জন্য পুলিশের প্রস্তুতি রয়েছে সর্বত্রই। নবান্নের চার পাশে ত্রিস্তরীয় বলয় গড়ে তোলা হয়েছে।হাওড়া ময়দান ও সাঁতরাগাছিতে ড্রোনে নজরজদারি চালাচ্ছে পুলিশ। হাওড়া ময়দানে মোতায়েন রয়েছে রোবো কপ।

তার মধ্যেই হাওড়া ময়দানে মিছিল শুরুর আগে পুলিশের ব্যারিকেড সরিয়ে দেন বিজেপি কর্মীরা। এদিন হেস্টিংস মোড়েও বিজেপির মিছিল ঘিরে ধুন্ধুমার কাণ্ড ঘটে। বিজেপির মিছিল ছত্রভঙ্গ করতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পাল্টা ইটবৃষ্টি শুরু করে আন্দোলনকারীরা। হেস্টিংসে কয়েকজন বিজেপি কর্মী আহত হন।

পুলিশের বাধা পেয়ে হেস্টিংস মোড়ে বসে পড়েন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, লকেট চট্টোপাধ্যায় সহ বিজেপির নেতানেত্রীরা।হেস্টিংস, হাওড়া ময়দানের পাশাপাশি সাঁতারাগাছি, সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউতেও তুমুল উত্তেজনা রয়েছে।

নবান্ন অভিযানে আসা বিজেপি কর্মীর কাছে মিলল আগ্নেয়াস্ত্র
নবান্ন অভিযানে আসা বিজেপি কর্মীর কাছে মিলল আগ্নেয়াস্ত্র

সব মিলিয়ে কলকাতা হাওড়াজুড়ে কার্যত হুলুস্থুল পড়ে গিয়েছে গেরুয়া শিবিরের কর্মসূচি ঘিরে। উল্লেখ্য, গত কালই স্যানিটাইজ করার জন্য দুদিন নবান্ন বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করে সরকার। যদিও তাতে বিজেপি কর্মসূচি স্থগিত করেনি। বরং গেরুয়া শিবিরের তরফে বলা হয়, মুখ্যমন্ত্রী ভয়ে পালিয়ে যেতে পারেন কিন্তু বিজেপি রাস্তায় নামবেই।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I