নন্দীগ্রাম : নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে ততই সংবাদের শিরোনামে আসছে নন্দীগ্রাম । গত কয়েক দিন ধরে এই বিধানসভা কেন্দ্রে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী হবে কিনা তাই নিয়ে আলোচনা চলছে । নন্দীগ্রাম নিয়ে সেই রাজনৈতিক আলোচনার মধ্যেই এখানে একটা লেদ কারখানার আড়ালে বেআইনি অস্ত্র তৈরীর কারখানার হদিশ পেল পুলিশ ।

মঙ্গলবার ঘটনাটি সামনে আসতেই ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। এই নিয়ে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে । যদিও পুলিশের দাবি এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই ।

জানা গিয়েছে, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রাম – ১ ব্লকের হাজরাকাটার হোসেনপুর এলাকায় দীর্ঘদিনের লেদ কারখানা আছে এই এলাকার বাসিন্দা সেখ হাকিমুদ্দিন । সেখানেই গোপনে গড়ে উঠেছিলো অস্ত্র কারখানা । গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ মঙ্গলবার সকালে আচমকা অভিযান চালায় । পুলিশ সুত্রে জানা গেছে অভিযানে পুলিশের হাতে কয়েকটি সম্পূর্ন ও কয়েকটি অসম্পূর্ন পিস্তল উদ্ধার হয়েছে।এগুলি সেখানে তৈরী হয়েছিলো বলে জানা গেছে।

এর পরেই লেদ কারখানার মালিক সেখ হাকিমুদ্দিন ও তার স্ত্রীকে আটক করে পুলিশ।তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পুলিশ সুপার প্রয়ীন প্রকাশ জানিয়েছেন নির্বাচনের দিনক্ষন ঘোষনার পর থেকেই জেলা জুড়ে আইন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছে পুলিশ। এর মধ্যেই নন্দীগ্রামে এই লেদ কারখানায় অস্ত্র তৈরীর খবর পেয়ে অভিযান চালানো হয়েছে। দুই জনকে আটক করে জিজ্ঞসাবাদ শুরু হয়েছে। তবে এর পিছনে রাজনীতির কোনও যোগ নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কিছুদিন আগে নিমতায় একটি অস্ত্র কারখানার সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল। নিমতায় অস্ত্র কারখানা থেকে সিআইডি এবং পুলিশের যৌথ তল্লাশি অভিযানে ৭টি পাইপ গান উদ্ধার করেছে বলে খবর। সিআইডি’র দল এই ঘটনার তদন্তে নেমে অস্ত্র ব্যবসায়ী তথা বন্দুক তৈরির মূল কারিগর দুলাল সরকার এবং অস্ত্র কারবারি প্রকাশ গায়েনকে গ্রেফতার করে। ভোটের মুখে এভাবে অস্ত্র কারখানার সন্ধান মেলায় চিন্তায় পুলিশ প্রশাসন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।