ছোট হাতার টপ বা ব্লাউজ দারুন লাগে। কিন্তু, সমস্যা হল আন্ডার আর্মের কালো দাগ। হাত তুললেই লজ্জা। এই কালো ছোপ দেখতেও খুব বিচ্ছিরি। বগলের নিচের কালো দাগ খুব একটা দেখা না গেলেও নিজের কাছে অস্বস্তি লাগে অধিকাংশ মানুষেরই।

নানান কারনে হতে পার এই দাগ। বংশগত কারনে, অতিরিক্ত ডিওডোরেন্ট ও বডি স্প্রে ব্যবহারের কারনে, ডায়াবেটিস এর কারনে কিংবা হঠাৎ ওজন বেড়ে যাওয়া বা কমে যাওয়ার কারনে সৃষ্টি হতে পারে এ ধরনের বিচ্ছিরি দাগের। কি করবেন এমন দাগ হয়ে গেলে? চিন্তার কিছু নেই। আন্ডার আর্মের কালো দাগ দূর করার আছে কিছু ঘরোয়া উপায়। জেনে নিন সহজ উপায় গুলো।

স্ক্র্যাবিং অনেক সময় মৃত চামড়ার কারণে বগলে বিচ্ছিরি কালো দাগ হয়ে যায়। তাই মৃত চামড়া সরিয়ে ফেলতে পারলে বগলের কালো দাগ অনেকটাই কমে যায়। আর মরা চামড়া পরিষ্কার করার জন্য প্রয়োজন নিয়মিত স্ক্র্যাবিং করা। জেনে নিন স্ক্র্যাবিং এর দুটি পদ্ধতি।

আধা চা চামচ লবণ, দুই চামচ গোলাপ জল, সামান্য জনসন বেবি পাউডার মিশিয়ে বগলের নিচে কিছুক্ষন ঘষে নিন। ৩০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে নিয়মিত ব্যবহার করুন।

লেবুর খোসায় চিনি লাগিয়ে নিন। এবার চিনি সহ লেবুর খোসাটি বগলের ত্বকে ভালো করে ঘষুন। নিয়মিত ব্যবহারে ফলাফল পাবেন।

আলুর রস বগলের কালো দাগে নিয়মিত আলুর রস ব্যবহার করুন। আলুর রস প্রাকৃতিক ভাবে দাগ দূর করতে সহায়তা করে। তাই সপ্তাহে অন্তত দিন দিন বগলের ত্বকে আলুর রস লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে দিন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। ধীরে ধীরে বগলের কালো দাগ দূর হয়ে যাবে।

বেকিং সোডা বগলের কালচে দাগ ওঠাতে বেকিং সোডা বেশ কার্যকরী। বেকিং সোডার সাথে সামান্য জল মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রনটি বগলের নিচের ত্বকে ভাল করে ঘষে ১৫ মিনিট রেখে দিন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। এভাবে সপ্তাহে কমপক্ষে চার বার ব্যবহার করুন। এতে ধীরে ধীরে বগলের কালো দাগ দূর হয়ে যাবে।

শেভিং এর বদলে ওয়াক্সিং বগলের ত্বকে শেভিং করার বদলে ওয়াক্সিং করুন। ওয়াক্সিং করলে ত্বকের গভীর থেকে রোমকূপ উঠে আসে এবং ত্বক কালচে দেখায় না। এছাড়াও নিয়মিত ওয়াক্সিং করলে ধীরে ধীরে বগলের কালো দাগ কমে যায়।

(পারলে এক্সপার্টের পরামর্শ নিন)