প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং-এর বাড়িতে গেলেন বিজেপি নেতা অর্জুন সিং। শুধু তাই নয় ওই বাড়িতে বসেই বৈঠক করলেন স্থানীয় বিজেপি নেতাদের সঙ্গে।

বুধবার সন্ধ্যায় নোয়াপাড়া বিধানসভা এলাকায় গারুলিয়া পুরসভার সামনে জনসভা করে বিজেপি। সেই জনসভায় হাজির ছিলেন অর্জুন সিং। তাঁর ভাগ্নে তথা সুনীল সিং-এর পুত্র আদিত্য সিং সেই সভায় উপস্থিত ছিলেন।

যেখানে সভার আয়োজন করা হয়েছিল সেই সভামঞ্চের পাশেই সুনীল সিং-এর বাড়ি রয়েছে। সভার শেষে ওই বাড়িতে যান অর্জুন সিং। গারুলিয়ায় সুনীল বাবুর বাড়িতে যাওয়া প্রসঙ্গে অর্জুন সিং বলেন, “আমি বোনের বাড়ি এসেছিলাম। ভাগ্নে আদিত্য আমাদের দলের সক্রিয় কর্মী। ওর সঙ্গে দেখা করেছি। কিছু রাজনৈতিক আলোচনা হয়েছে। রাজনীতির লোক হলেও ব্যাক্তিগত সম্পর্ক আলাদা জায়গায়। আমি বোনের বাড়িতে আদিত্যর ছোট অফিস ঘরে বসে কথা বলেছি।”

এই বিষয়ে সুনীল পুত্র আদিত্যও মামা অর্জুনের সুরেই সুর মিলিয়েছেন। তাঁর কথায়, “মামার রাজনৈতিক আদর্শে আমি বিশ্বাস করি। মামা আমার কাছে এসেছিল। বাবা এখন খুব ব্যাস্ত, বাড়িতে ছিল না। আমি মামাকে এই গারুলিয়া পুরসভা এলাকা থেকে অন্তত ২০ হাজার ভোটে লিড দেব। বাবার মতাদর্শ আলাদা, আমার মতাদর্শ আলাদা। আমি বিজেপিকে জেতাতে বদ্ধ পরিকর।”

তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন যুব নেতা আদিত্য মাত্র কয়েকদিন আগেই নিজের অনুগামী ও সমর্থকদের নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস দল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। সুনীল সিং নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক পদে রয়েছেন। সুনীল পুত্র আদিত্য একই বাড়িতে বাবার সঙ্গে থাকলেও বর্তমানে তিনি বিজেপিতে যোগ দেন। তারপর জল্পনা তৈরি হয় যে শীঘ্রই বিজেপিতে যোগ দেবেন সুনীল সিং। তবে সেই জল্পনা ফলপ্রসু হয়নি।

বৃহস্পতিবারই বারাকপুরে তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদীর সমর্থনে জোড়া জনসভা করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নোয়াপাড়ার সেই জনসভা তে মুখ্যমন্ত্রীর পাশে বসে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনাও করতে দেখা যায় তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিংকে।

সূত্রের খবর, বুধবার গারুলিয়া পুরসভার তৃণমূল কাউন্সিলর বোন সরিতা সিং দাদার খোঁজ খবর নেন, শরীরের যত্ন নেওয়ার কথা বলেন অর্জুন বাবুকে। গোটা বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক জল্পনা থাকলেও তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং যে তৃণমূল কংগ্রেস দল আপাতত ছাড়ছেন না তা তার মুখ্যমন্ত্রীর জনসভায় উপস্থিত থাকা থেকে স্পষ্ট ।