স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে, দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়ার ঘটনা প্রায় রোজই প্রকাশ্যে আসছে৷ কোথাও না কোথাও কোন না কোন রাজনৈতিক দলের দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়া হচ্ছে৷ এই দেওয়াল লিখন মুছে দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে৷ যাকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল উত্তর ২৪ পরগণার নৈহাটির পাওয়ার হাউস মোড় এলাকায়৷

জানা গিয়েছে, লিখিত অনুমতি নিয়ে বিজেপি পাওয়ার হাউস মোড় এলাকায় একটি বাড়ির দেওয়ালে অর্জুন সিং-এর নামে দেওয়াল লিখন শুরু করে। কিছুক্ষণ পর কয়েকজন তৃণমূল কর্মী ঘটনাস্থলে এসে দাবি করে ওই দেওয়ালটি লেখার জন্য তাদেরও অনুমতি রয়েছে। ফলে বিজেপি কর্মীদের দেওয়াল লিখতে দেওয়া যাবে না।

বিজেপি কর্মীরা যারা অর্জুন সিং-এর নামে দেওয়াল লিখছিল তাদের তৃণমূল কর্মীরা মারধর করে৷ এমনকি দেওয়াল লিখতে বাঁধা দেয় বলে অভিযোগ স্থানীয় বিজেপি কর্মীদের। এই ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিং।

তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছালে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তথা নৈহাটি পুরসভার চেয়ারম্যান অশোক চট্টোপাধ্যায় কয়েকশো তৃণমূল কর্মী নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এলাকায় শুরু হয় তৃণমূল ও বিজেপি দুই দলের কর্মীদের মধ্যে গণ্ডগোল শুরু হয়। অভিযোগ এই গণ্ডগোলের মধ্যে পরে তৃণমূল কর্মীদের হাতে হেনস্থা হতে হয় বারাকপুর লোকসভার কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিংকে।

তাঁর অভিযোগ, রাজ্যের শাসক দল এমনিতেই জোর করে সব দেওয়াল দখল করে নিয়েছে। আজকে আমাদের দলের কর্মীরা পাওয়ার হাউস মোড়ে একটি বাড়ির মালিকের অনুমতি নিয়ে দেওয়াল লিখছিল৷ তা স্বত্বেও নৈহাটি পুরসভার চেয়ারম্যান অশোক চট্টোপাধ্যায় শাসক দলের আশ্রিত দুষ্কৃতীদের নিয়ে এসে আমাদের কর্মীদের মারধর করে৷ এমনকি আমাদের মণ্ডল সভাপতিকে মারধর করা হয়।

অর্জুন সিং-এর মতে, খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে এসে দেখে ওরা ইচ্ছা করে আমাদের কর্মীদের উপর হামলা করেছে৷ যদিও এই দেওয়াল লিখনের জন্য বাড়ির মালিক আমাদের লিখিত অনুমতি পত্র দিয়েছে। সেই অনুমতি পত্র আমাদের হাতে রয়েছে। ওরা ভেবেছে আমাদের দলের কর্মীদের এই ভাবে ভয় দেখাবে। কিন্তু ওরা জানে না বিজেপি এখন রাজ্যর শাসক দলের সন্ত্রাসের কাছে মাথা নত করবে না।

অন্যদিকে নৈহাটি পুরসভার তৃণমূল কংগ্রেসের চেয়ারম্যান অশোক চট্টোপাধ্যায় বলেন, অর্জুন ভেবেছে সন্ত্রাস করে রাজনীতি করবে তা আমরা হতে দেব না। ওরা যে দেওয়াল লিখছিল সেই দেওয়াল লেখার অনুমতি আমাদের আগে থেকেই ছিল। ওই বাড়ির মালিক অজান্তে ওদেরও অনুমতি দিয়েছিল। এখন বাড়ির মালিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এই দেওয়াল ওরাও লিখবে না আমরাও লিখব না।

অর্জুন সিং এত দিন যেভাবে সন্ত্রাস চালিয়ে এসেছে সেই সন্ত্রাসের রাজনীতি নৈহাটিতে চলবে না। এদিকে এই ঘটনার জেরে বিজেপির মণ্ডল সভাপতি সুব্রত দাসকে এলাকায় বিজেপি করতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। সুব্রত দাস বলেন বাড়ির মালিক লিখিত অনুমতি দিয়েছিল বলেই আমরা দেওয়াল লিখছিলাম। ভয় দেখিয়ে বিজেপি কর্মীদের দমানো যাবে না৷ অর্জুন সিং-কে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে লক্ষাধিক ভোটে জয়ী করব।