স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: বারাকপুরের আটটি পুরসভাতেই তৃণমূল হারবে। তাই উনি এখন কর্পোরেশন করতে চাইছেন। কর্পোরেশন করলেও তৃণমূল হারবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শনিবার এভাবেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন স্থানীয় সাংসদ অর্জুন সিং৷

 ২০২০ সালে রাজ্যে পুরসভা ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তবে তার আগে কলকাতা সংলগ্ন উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুর মহকুমার বিভিন্ন পুরসভা গুলিকে ভেঙে বারাকপুর পুরসভা গড়তে চায় রাজ্য সরকার। তাহলে বারাকপুর মহকুমার অন্তর্গত বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র অঞ্চলের নব্বই শতাংশ অংশই বারাকপুর কর্পোরেশনের অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। বারাকপুর কর্পোরেশন গঠনের বিষয়ে আগে থেকেই পরিকল্পনা রয়েছে রাজ্য সরকারের। তবে এবার পুরবোর্ড গঠনের বিষয়ে আরও একধাপ এগল রাজ্য সরকার। রাজ্যের পক্ষ থেকে বারাকপুর কর্পোরেশন গঠনের বিষয়ে বারাকপুর মহকুমার মোট আটটি পুরসভার কাছে নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

জানা গিয়েছে, এই আটটি পুরসভা হল কাঁচরাপাড়া, হালিশহর, নৈহাটি, ভাটপাড়া, গারুলিয়া, উত্তর বারাকপুর, বারাকপুর ও টিটাগড় । রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেকটি পুরসভায় লিখিত নোটিশ পাঠিয়ে কর্পোরেশন গঠনের বিষয়ে বেশ কিছু আবশ্যিক তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে। ওই নোটিশে বলা হয়েছে, দ্রুত আবশ্যিক তথ্য লিখিত ভাবে জমা দিতে হবে। এদিকে রাজ্য সরকারের বারাকপুর কর্পোরেশন গঠনের ভাবনাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে মনে করছেন বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

তিনি বলেন, “রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ভাবেই হোক ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়া চেষ্টা করবেন। কিন্তু বাংলায় আর তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসবে না। উনি ভাবছেন পুলিশকে দিয়ে ভোট করিয়ে জিতে যাবেন। পুলিশ যদি ভোট করতে পারত বাংলায় বিজেপি আঠারোটি আসন পেত না। বারাকপুরের আটটি পুরসভাতেই তৃণমূল হারবে। তাই উনি এখন কর্পোরেশন করতে চাইছেন। কর্পোরেশন করলেও তৃণমূল হারবে। কোন অবস্থাতেই আর তৃণমূলকে কেউ বাঁচাতে পারবে না। উনি পুলিশের ভরসায় আছেন। উনি মূর্খের স্বর্গে বাস করছেন। বারাকপুরে তৃণমূলকে কেউ জেতাতে পারবে না। এই বাংলাতেও তৃণমূলের সরকার আর আগামীদিনে থাকবে না।”

বারাকপুর কর্পোরেশন গঠন হলে যে আটটি পুরসভার কাছে কর্পোরেশন গঠনের বিষয়ে নোটিশ পাঠানো হয়েছে, সেই পুরসভা গুলোর আর কোনও অস্তিত্ব থাকবে না। যার ফলে ২০২০ সালের পুরভোটে বারাকপুর মহকুমায় বিভিন্ন পুরসভায় ভোট হওয়া নিয়ে এখন অনিশ্চিত বিভিন্ন রাজনৈতিক দল গুলি। বারাকপুর পুরসভার

পুরপ্রধান উত্তম দাস বলেন, “আমরা এই অঞ্চলের সব পুরসভাই সরকারি নোটিশ পেয়েছি। আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সব সময় চাই যাতে সাধারন মানুষ আমাদের থেকে উন্নত মানের পরিষেবা পায়। মুখ্যমন্ত্রী সব সময় মানুষের ভালটাই চিন্তা করেন। বারাকপুর কর্পোরেশন গঠন হলে সবথেকে বেশি উপকৃত হবেন সাধারন মানুষ। অনেক উন্নত হবে নাগরিক পরিষেবা। আসন্ন পুরভোটের আগেই যদি কর্পোরেশন গঠন সম্ভব হয় তবে সব থেকে ভাল কাজ হবে। এর আগে বিধান নগর, হাওড়া কর্পোরেশন গঠন করা হয়েছে। আশা করছি বারাকপুর কর্পোরেশন গঠনও কয়েক মাসের মধ্যেই শীঘ্রই হবে। শুধু যে আটটি পুরসভা নিয়ে কর্পোরেশন গঠন হবে এমন নাও হতে পারে। এই বারাকপুর শিল্পাঞ্চলে কয়েকটি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে, সেগুলোও কর্পোরেশনের অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে।”

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শীর্ষ তৃণমূল নেতার কথায়, বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র এলাকাকে কর্পোরেশনের মধ্যে আনতে চাইছে রাজ্য সরকার। বারাকপুর কর্পোরেশন তৈরি করে যদি ২০২০ তে বারাকপুরে কর্পোরেশন নির্বাচন হয়, তবে অবাক হওয়ার কিছুই নেই।