স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হিন্দিভাষীদের বহিরাগত বলে বাঙালি আর অ-বাঙালিদের মধ্যে গণ্ডগোল বাধাতে চাইছেন৷ফের এই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং৷ অর্জুন সিং-এর দাবি, তাঁর পরিবার বাংলায় ১৪০ বছর ধরে রয়েছে। তাদেরকেও বহিরাগত বলা হচ্ছে৷

কয়েকদিন আগেই মুখ্যমন্ত্রীর মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন অর্জুন৷ বলেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মানসিক চিকিৎসা করানোর আবেদন জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করতে চলেছেন তিনি। কারণ তাঁর অভিযোগ, বাঙালি- অবাঙালি বিভেদ তৈরি করার চেষ্টা করছেন মমতা।

রবিবার সংখ্যালঘু অধ্যুষিত আমডাঙ্গায় পাঁচ হাজার মানুষকে বিজেপিতে যোগদান করিয়ে অর্জুন সিং শপথ নেন আমডাঙ্গা বিধানসভা জয়ের।তিনি বলেন, রাজ্যে সবচেয়ে বড় দূর্নীতি গ্রস্থ দল তৃণমুল। আগামী নির্বাচনে ওরা প্রার্থী দিতে পারবে না।সবার সাজা হয়ে যাবে ফলে কেউ ভোটে দাড়াতে পারবে না।

অর্জুন কয়েকদিন আগেও দাবি করেছিলেন, তৃণমূল সরকার আর ছ’ মাসের বেশি ক্ষমতায় থাকবে না। নিজের দাবির পক্ষে যুক্তি দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘এই সরকার আর চলবে না। যিনি মানসিক ভারসাম্য হারিয়েছেন, তাঁর এরকম সাংবিধানিক পদে থাকার কোনও অধিকার নেই। তাই সুপ্রিম কোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করছি। যাতে এই পদে ওনার বসা উচিত কি না তা খতিয়ে দেখতে ওনার মানসিক সুস্থতার পরীক্ষা করা হয়। কারণ উনি সাংবিধানিক পদে বসে উনি যে মন্তব্য করছেন, তাতে গৃহযুদ্ধ বেঁধে যাবে।’ সংসদ শুরু হলে সেখানেও তিনি বিষয়টি নিয়ে সরব হবেন বলে জানিয়েছেন অর্জুন।

কিছুদিন আগে কাঁচরাপাড়ায় গিয়ে বিজেপি-র বিরুদ্ধে বাঙালি- অবাঙালি বিভেদ তৈরির অভিযোগ তুলেছিলেন মমতা। তাঁর অভিযোগ, ব্যারাকপুর, ভাটপাড়ার মতো এলাকায় বাঙালিদের ভয় দেখানো হচ্ছে। নাম না করলেও স্বভাবতই মমতার নিশানা ছিল বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংহের দিকেই। বিজেপি নেতা মুকুল রায়কেও নাম না করে আক্রমণ করেন মমতা। তারপর থেকেই মমতার মন্তব্যকে ইস্যু করে মাঠে নেমেছে পড়েছেন অর্জুন৷