রিও ডি জেনেইরো: বল পায়ে লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। স্বাভাবিকভাবেই অনুরাগীদের প্রত্যাশা গগনচুম্বী থাকে মহাদেশের দুই সেরা ফুটবল শক্তির দ্বৈরথ দেখার। গ্রুপ পর্বের প্রথম দু’ম্যাচ পর নক-আউটের সম্ভাবনা অনিশ্চিত থাকলেও গ্রুপের শেষ ম্যাচে কাতারকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার নিশ্চিত করেছিল নীল-সাদা ব্রিগেড। আর শনিবাসরীয় মারকানায় ভেনেজুয়েলাকে হারিয়ে ফুটবল অনুরাগীদের প্রত্যাশা পূরণ করল আর্জেন্তিনা।

প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে প্যারাগুয়েকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমি আগেই নিশ্চিত করেছিল সেলেকাও। দ্বিতীয় কোয়ার্টার ফাইনালে ভেনেজুয়েলাকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোপার শেষ চার নিশ্চিত করল অ্যালবিসেলেস্তেও। দুই অর্ধে অ্যালবিসেলেস্তের হয়ে এদিন দু’টি গোল করলেন লওতারো মার্টিনেজ ও জিয়োভানি লো সেলসো। কাতার ম্যাচের মতোই শনিবার প্রথম কোয়ার্টারেই গোল তুলে নিয়ে ম্যাচে নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করে আর্জেন্তিনা।

আরও পড়ুন: প্যারাগুয়েকে হারিয়ে কোপার শেষ চারে ব্রাজিল

কাতারের বিরুদ্ধে গ্রুপ লিগের শেষ ম্যাচে চতুর্থ মিনিটে গোল এসেছিল ২১ বছরের মার্টিনেজের থেকে। এদিনও লিও মেসির বাঁক খাওয়ানো কর্নারে আগুয়েরোর নেওয়া শট বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে ব্যাক হিলে জালে রাখেন তিনি। দেশের জার্সি গায়ে দশম ম্যাচে ষষ্ঠ গোলটি করে ফেললেন মার্টিনেজ। প্রথমার্ধের শেষে ভেনেজুয়েলা বল পজেশনে সামান্য এগিয়ে থাকলেও (৫১%-৪৯%) বিপক্ষের গোল লক্ষ্য করে ১১টি শট নেয় আর্জেন্তিনা, যার মধ্যে ৩টি অন টার্গেট। পাশাপাশি প্রথমার্ধে সাত-সাতটি কর্নার আদায় করে নিলেও মাত্র ১টিই গোলে কনভার্ট করতে সমর্থ হয় দু’বারের বিশ্বজয়ীরা।

আরও পড়ুন: ভাগ্যের চাকা বদলে নিজেকে কৃতিত্ব দিলেন শামি

লকাররুম থেকে ফিরে দ্বিতীয়ার্ধে বদলে যায় চিত্রটা। মুহুর্মুহু আক্রমণে স্ক্যালনির দলকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয় ভেনেজুয়েলা। সেসময় তিনকাঠির নীচে ফ্র্যাঙ্কো আরমানি বিশ্বস্ত না হয়ে দাঁড়ালে বিপদ অপেক্ষা করছিল আর্জেন্তিনার জন্য। রোনাল্ডো হার্নান্দেজের একটি দুরন্ত প্রয়াস প্রতিহত হয় আরমানির দস্তানায়। ৭৪ মিনিটে পরিবর্ত লো সেলসো আর্জেন্তিনাকে বহু প্রতীক্ষিত ইনসিওরেন্স গোলটি এনে দেন। সৌজন্যে ভেনেজুয়েলা গোলরক্ষক উইলকার ফ্যারিনেজ।

আরও পড়ুন: মৌমাছির হানায় বন্ধ বিশ্বকাপের ম্যাচ

বক্সের সামান্য বাইরে থেকে আগুয়েরোর নেওয়া একটি নির্বিষ শট কব্জা করতে ব্যর্থ হন তিনি। ভুলের সুযোগ নিয়ে ওত পাতা শিকারির মত সেই বল জালে রাখেন সেলসো। আর্জেন্তিনার দ্বিতীয় গোলের পর ম্যচে ফিরে আসা খুব একটা সহজ ছিল না ভেনেজুয়েলার পক্ষে। শেষমেষ আর ম্যাচে ফিরতেও পারেনি তাঁরা। সুতরাং ২-০ গোলে ম্যাচ জিতে উত্তেজক সেমিতে ব্রাজিলের মুখোমুখি আর্জেন্তিনা।

অপর কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়াকে হারিয়ে শেষ চারের যোগ্যতা অর্জন করল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন চিলি। পেনাল্টি শুট আউটে কলম্বিয়াকে ৫-৪ ব্যবধানে হারাল তাঁরা।