কলকাতা: মাঝে একটা সুদীর্ঘ বিরতি। গত ২০১৮ সালে মুক্তি পেয়েছিলো ঢালিউড অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস অভিনীত ‘পাংকু জামাই’ সিনেমা।মাঝে ব্যাক্তিগত জীবনের ঝড় ঝাপটা সামলে আবার বড় পর্দায় প্রত্যাবর্তন করছেন ওপার বাংলার জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাস।তাও আবার দুই বাংলার জনপ্রিয় গায়ক যার কলম ও সুর বারংবার ঝড় তুলেছে সামাজিক,রাজনৈতিক এবং জীবনে,তাঁর গল্পে।তবে শুধু অপু বিশ্বাস নয়,ওপার বাংলার আরও এক ঝাঁক প্রতিভা অভিনয় করবে এই গল্পে।খুব শীঘ্রই মুক্তি পাবে নতুন সিনেমা ‘শর্টকাট’। জনপ্রিয় গায়ক নচিকেতা চক্রবর্তীর গল্পে এ সিনেমাটি তৈরি হয়েছে কলকাতায়। এ ছবিটি পরিচালনা করছেন পরিচালক সুবীর মন্ডল।

বিত্তবান পরিবারের এক ছেলে এবং তার ঠিক পাশের বস্তিতে থাকা আরেকটি ছেলের গল্পে তৈরী হচ্ছে ‘শর্টকাট’ এর বুনন। এখানে অপু বিশ্বাসের বিপরীতে অভিনয় করেছেন কলকাতার গৌরব চক্রবর্তী। ছবিতে বাংলাদেশ থেকে আরও আছেন অরিন, রেবেকা রউফ ও গৌতম সাহা। এছাড়া গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন টলিউড তারকা পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।অপু সম্প্রতি ছবিটির ডাবিং শেষ করে এসেছেন কলকাতা থেকে। এই ছবি নিয়ে উচ্চশিত অপু বিশ্বাস জনিয়েছেন,এই ছবি নিয়ে তিনি খুব আশাবাদী।ছবির গল্প যথেষ্ট স্ট্রং।

অন্যদিকে এই ছবি অপু বিশ্বাসের কাম ব্যাক বলা যায়।এতদিন পরে আবারও দর্শকের সামনে ফেরার সুযোগ হচ্ছে। দুই বাংলার প্রিয় গায়ক নচিকেতার লেখা গল্পের সিনেমায় নায়িকা হয়েছি। এটা বাড়তি আনন্দ তাঁর কাছে। অপু বিশ্বাসের এই চরিত্রে নানা ধরনের শেড আছে।যা দর্শক তারিয়ে উপভোগ করবেন।প্রসঙ্গত, বর্তমানে ‘শর্টকাট’ ছাড়াও অপু বিশ্বাস অভিনীত আরও দুটি সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে শাহরিয়ার নাজিম জয়ের পরিচালনায় ‘প্রিয় কমলা’ ও দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’।

অনেকদিন ধরেই নানা কারণে ‘শর্টকাট’ ছবিটির কাজ আটকে ছিলো। তার মধ্যে করোনা পরিস্থিতিও ছবিটিকে পিছিয়ে দিয়েছে। সাফটা চুক্তির আওতায় কলকাতার পাশাপাশি ‘শর্টকাট’ বাংলাদেশেও মুক্তি পাবে এ দেশে মুক্তি দেওয়া হবে। সেমতেই পরিকল্পনা চলছে।অপু বিশ্বাসের অনুরাগীরাও খুব খুশি প্রিয় নায়িকাকে এতদিন পর পর্দায় পাওয়ার কথা জেনে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।