কলকাতা: নিজামুদ্দিন মার্কাজ থেকে ছযিয়ে পড়েছে সংক্রমন। গত তিনদিনে ভারতে যে নতুন করোনা আক্রান্তদের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে, তার মধ্যে প্রায় ৬০ শতাংশই তবলিগি জামাতের সদস্য। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে গোটা দেশ জুড়ে। এই পরিস্থিতিতে মুখ খুললেন অভিনেত্রী অপর্না সেনও।

ট্যুইটারে এই ঘটনা প্রসঙ্গে অপর্ণা লিখেছেন, ‘জামাতদের ওই জমায়েত অত্যন্ত বিপজ্জনক আর অবশ্যই অপরাধমূলক কাজ। এই কাজের শাস্তি হওয়া উচিৎ।’

সেইসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘আমি নিরপেক্ষ নই। আমি উদারমনস্ক। কিন্তু দেশের আইন বিরোধী কোনও কাজ আমি বরদাস্ত করতে পারি না। সে হিন্দু, মুসলিম, ক্রিশ্চান, শিখ, নাস্তিক যেই করুক না কেন।’

তবলিগি জামাত ইস্যু ছাড়াও লকডাউন পরিস্থিতিতে দেশের দুস্থদের কথাও তাঁকে ভাবিয়ে তুলেছে। “হায় রে, দেশের সিংহভাগ মানুষই বোধহয় করোনার থাবায় নয়, বরং না খেতে পেয়ে মরে যাবে”, মন্তব্য অপর্ণার।

এদিকে, ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা একধাক্কায় বেড়েছে অনেকটাই। শুধুমাত্র দিল্লির নিজামুদ্দিন এলাকার মসজিদে আয়োজিত তাবলিগি জামাতে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ৬৪৭ জন করোনা আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে।

ওই জমায়েত থেকে করোনাভাইরাস ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। ওই সমাবেশে হাজির হওয়া প্রায় ৬৪৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে শুক্রবার সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে। ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে বলা হয়েছে, “তবলিগ জামাতের সমাবেশে হাজির হয়েছিলেন এমন ৬৪৭ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে গত দু’দিনে। দিল্লির ওই তাবলিগ জামাত থেকে দেশের ১৪টি রাজ্যে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া ওই তাবলিগি জামাতের সঙ্গে যুক্ত অন্তত ১২ জন ইতোমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।’

গত মার্চের মাঝামাঝি সময়ে মার্কাজ নিজামুদ্দিনের ওই তবলিগি জামাতে ভারত ছাড়াও অন্যান্য দেশ থেকে কয়েক শ মানুষ অংশ নেন। ছিলেন বাংলাদেশিও। সব মিলিয়ে প্রায় ৯ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছিলেন ওই সমাবেশে। ভারতের একাধিক রাজ্যে রাজ্য সরকার ওই সমাবেশে যোগ দেওয়া ব্যক্তিদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।

শুক্রবার একধাক্কায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৪৭৮ জন। একদিনে এত বেশি আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ভারতে এই প্রথম। সব মিলিয়ে প্রায় ২৬০০ -র কাছাকাছি পৌঁছে গেল আক্রান্তের সংখ্যা।