স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: মালদহে বিতর্ক তৈরি করেই হাওড়ায় এসে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমেছিলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ এবার নিজের বক্তব্যকে ঘুরিয়ে প্রতিরোধ করার বার্তা দিলেন তিনি৷ বিজেপির রথ যাত্রা আটকালে তার প্রতিরোধে মহিলাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান লকেট৷

সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়্গপুরের গোলবাজারে রামমন্দির হলে রথযাত্রার প্রস্তুতি বৈঠক করেন এই বিজেপি নেত্রী৷ বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের লকেট জানান, “গণতন্ত্র বাঁচানোর জন্য যে রথ বেরোবে, সেই রথে বাধা দিতে এলে বাড়ির মহিলারা ঝাঁটা, বঁটি, লাঠি হাতে বেরোবে”। তিনি আরও বলেন, “পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে৷ মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের। তাই বাড়ির মহিলারা এগিয়ে আসবেন এই গণতন্ত্র বাঁচানোর জন্য।”

উল্লেখ্য এদিন খড়্গপুরে মহিলা মোর্চার এই বৈঠকে লকেট চট্টোপাধ্যায় ছাড়াও হাজির ছিলেন রাজ্য নেতৃত্ব বিশ্বপ্রিয় রায় চৌধুরী, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সভাপতি সমিত কুমার দাশ প্রমুখ। উল্লেখ্য আগামী রথযাত্রায় তারাপীঠ থেকে কলকাতায় যে রথটি আসবে, তা এই জেলার ওপর দিয়েই যাবে৷ তারই প্রস্তুতি বৈঠকের আয়োজন করা হয় খড়্গপুরে।

এর আগে এরকমই দুটি প্রস্তুতি বৈঠক করেন লকেট৷ একটি মালদহে, অপরটি হাওড়ায়৷ শনিবার মালদহে এই বিজেপি নেত্রী হুঁশিয়ারি দেন “রথযাত্রা যে আটকাতে চাইবে, তাঁকে সেই রথের তলাতেই পিষে মারা হবে”৷ তিনি আরও বলেন, “বিগত নির্বাচন গুলিতে বাংলার শাসকদল যে ভাবে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে সন্ত্রাস করেছে ও প্রতিনিয়ত মহিলাদের ওপর অত্যাচার হচ্ছে তার বিরুদ্ধে এই রথযাত্রা। কোচবিহার থেকে রথযাত্রা মালদহ দিয়ে যাবে। আর এই রথযাত্রাকে কেউ যদি আটকাতে আসে তাহলে রথের চাকায় পিষে দেওয়া হবে।”

লকেটের এই বক্তব্যের পরেই চাঞ্চল্য ছড়ায়৷ রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে বিজেপি অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ ওঠে৷ তারপরেই বেশ কিছুটা সুর নরম করেন লকেট চট্টোপাধ্যায়৷