লখনউ: কড়া ভাষায় গান্ধী পরিবারকে আক্রমণ করলেন কেন্দ্রীয় বস্ত্র মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি৷ ওই পরিবারের কেউই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে বারাণসীতে হারাতে পারবেন না বলে কটাক্ষ করেছেন স্মৃতি৷ এই প্রসঙ্গে স্মৃতির খোঁচা ইতালিয়ান হোক বা ভারতীয়, গান্ধী পরিবারের কারোর ক্ষমতা নেই মোদীকে হারানোর৷

বলাই বাহুল্য, নাগরিকত্ব প্রসঙ্গে এদিন সোনিয়া গান্ধীকে কটাক্ষ করেছেন স্মৃতি৷ তিনি বলেন কংগ্রেস এখন ডুবন্ত জাহাজ৷ সেই জাহাজের নির্বাচনী বৈতরণী পার করা কঠিন৷ বিজেপির কাছে কংগ্রেসের ভরাডুবি হবে৷

শনিবার জি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে স্মৃতি ইরানি বলেন যে কোনও দেশ থেকে গান্ধী পরিবার তাঁদের সদস্যদের নিয়ে আসতে পারে৷ কিন্তু তাঁরা কেউই মোদীকে হারাতে পারবেন না৷ উল্লেখ্য, কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বারাণসী থেকে দাঁড়াতে পারেন৷ লড়তে পারেন মোদীর বিরুদ্ধে, এরকম জল্পনা দীর্ঘদিন ধরেই রাজনৈতিক অলিন্দে ঘোরাফেরা করছে৷

আরও পডুন: সেনাপ্রধান নির্বাচন করতে গিয়ে টলে গিয়েছিল নেহরুর গদি

গান্ধী পরিবারের সব সদস্যকে একসঙ্গে মোদীর বিরুদ্ধে দাঁড় করালেও, মোদীই জিতবেন৷ এমনই বিশ্বাস স্মৃতি ইরানির৷ তবে রাজীব তনয়ার রাজনীতিতে আগমন, দলের হাল ধরায় উজ্জীবিত কংগ্রেস কর্মী, সমর্থকরা৷ তাদের দাবি মোদীর বারাণসী থেকে প্রার্থী করা হোক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভঢ়রাকে৷ প্রিয়াঙ্কা ক্যারিশ্মা ঘিরে আশঙ্কার দোলাচলে বিজেপিও৷ তাই প্রিয়াঙ্কার রাজনীতিতে প্রবেশ মাত্রই তাঁকে নিশানা করে নানা কথার স্রোত গেরুয়া শিবিরের নেতাদের মুখে৷ তাতে অবশ্য দমে না গিয়ে দাদা রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে প্রিয়াঙ্কা মাত করছেন রাজনীতির ময়দান৷

আরও পড়ুন : দিল্লি পুলিশ কিচ্ছু করতে পারবে না, গোল্লায় গোল্লা পাবে বিজেপি: মমতা

কংগ্রেস গড় বলে পরিচিত আমেঠিতে এবার প্রার্থী গেরুয়া দলের স্মৃতি ইরানি৷ বিপক্ষে রাহুল গান্ধী৷ বিরোধীদের অভিযোগ মোদীর আমলেই দেশে কৃষকদের দুরবস্থা চরমে৷ বিগত পাঁচ বছরেই কৃষক আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি৷ গত ডিসেম্বরে হিন্দি বলয়ের তিন রাজ্যের পদ্ম শিবিরের পরাজয়ের অন্যতম কারণও ছিল কৃষকদের ভোট না পাওয়া৷

গেরুয়া শিবিরের ফোকাসে এখন কৃষকদের উন্নয়ন৷ প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মান যোজনার সূচনা করেছেন মোদী সরকার৷ ভোটের আগে কৃষকদের মন পেতেই এই প্রকল্প বলে দাবি বিরোধীদের৷ সদ্য প্রকাশিত ইশতেহারেও কৃষকদের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি রয়েছে৷ কৃষকদের মন জয়ে তাই আমেঠিতে স্মৃতির প্রচারের মধ্যমণি কৃষকরাই৷