স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউনের জেরে আর্থিক সঙ্কটের প্রেক্ষিতে বুধবার সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই বৈঠককে তীব্র কটাক্ষ করলেন বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরী। তিনি বললেন, ‘দিদিভাই বিপদে পড়েছেন বলেই সবাইকে ডেকেছেন। তা না হলে ডাকতেন না। সেইসঙ্গে কংগ্রেস কর্মীদের উপর পুলিশ-মস্তান যৌথ আক্রমণ বন্ধের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর কাছে জন্য আলোচনার দাবি জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার নবান্নে সব দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আমফান পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সব দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে তিনি একটি কমিটি গড়ে দিয়েছেন। সেই কমিটিতে রয়েছেন তৃণমূলের তরফে পার্থ চট্টোপাধ্যায়, বিজেপির তরফে দিলীপ ঘোষ, সিপিএমের তরফে সুজন চক্রবর্তী-সহ প্রতিটি দলের নেতারাই।

সেদিন প্রায় তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চলে সর্বদল বৈঠক। সেই বৈঠক শেষে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, এই কমিটি প্রস্তাব জমা দেবে। কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তীতে কাজ করা হবে। একইসঙ্গে নীতি আয়োগকে সুন্দরবন নিয়ে চিঠি দেওয়া হবে। স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ সহ ওই সব এলাকার সমস্যার যাতে একটা স্থায়ী সমাধান করা যায়, সেই বিষয়ে একটা মাস্টার প্ল‍্যান তৈরি করা হবে।

ওই বৈঠককে কটাক্ষ করে শুক্রবার অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন, “এই রাজ্যে তৃণমূল ও পুলিশের যৌথ ষড়যন্ত্রে বহু কংগ্রেস কর্মী বছরের পর বছর জেলে পচছে। আমাদের কর্মীদের হিরোইন পাচারকারী বলে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তারা সাধারণ কর্মী। সর্বদল বৈঠক শুধু রাজ্যের ব্যর্থতা ঢাকতে ‘দিদি’র কৌশল হলে চলবে না। আমাদের ওপর পুলিশ -মস্তান যৌথ আক্রমণ বন্ধের জন্য আলোচনা হওয়া উচিত। ‘দিদিভাই’ বিপদে না পড়লে সকলকে ডাকতেন না।”

প্রসঙ্গত, ওইদিন বৈঠকের পর বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছিলেন, তাঁরাও বিজেপি কর্মীদের উপর পুলিশি অত্যাচার নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে নালিশ করেছেন।

সুজন চক্রবর্তী বলেছেন, “ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতিতে আমরা বলেছি সব। সরকার স্বীকারও করেছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা টাঙিয়ে দিতে হবে পঞ্চায়েত স্তর পর্যন্ত। একশো দিনের কাজ যেন পরিযায়ী শ্রমিকদের অবশ্যই দেওয়া হয়। ত্রাণের ব্যাপারে কোনও অস্বচ্ছতা মেনে নেওয়া হবে না।”

এদিকে, বহরমপুর সংশোধনাগারে (জেল) বহু মানুষের জ্বর, এখনো কোনও পরীক্ষা হয়নি, বিষয়টি দ্রুত নজর দেওয়ার জন্য এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছেন অধীর চৌধুরী।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও