মুম্বই: সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পরে বলিউডের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপের ভাই অভিনব কাশ্যপ। অভিনব জানিয়েছেন বলিউডের নেপোটিজম এর শিকার হয়েছেন সুশান্ত। ‌

তাঁর দাবি ‘দাবাং’ ছবিতে পরিচালনার কাজ করার পরে তার কেরিয়ার নষ্ট করতে উঠেপড়ে লেগেছিলেন সলমন খান, আরবাজ খান ও সোহেল খান। এই মর্মে ফেসবুকে একটি লম্বা পোস্ট করে সলমন খানকে বয়কট করার বার্তাও দিয়েছেন অভিনব।

এই প্রসঙ্গে জাতীয় বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপকে ফোন করে এই বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চান। অবশেষে নিজের টুইটার বিষয়টি নিয়ে মতামত রাখেন অনুরাগ। তিনি টুইট করেন, “যে সংবাদমাধ্যমরা আমাকে ফোন করে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইছিলেন, এটাকে আমার বক্তব্য বলে মনে করুন। দু’বছর আগে অভিনব আমায় বলেছিল ওর বিষয় থেকে নিজেকে দূরে রাখতে। তাই ও কী বলছে সেটা নিয়ে আমি মন্তব্য করতে পারব না। ধন্যবাদ।”

প্রসঙ্গত অভিনব কাশ্যপ তাঁর ফেসবুক পোস্টে জানান দাবাং ছবিটি সফল হওয়ার পর যখন দাবাং টু এর কাজ শুরু করেন তখন এই ঘটনার শুরু। এমনকি অভিযোগ তাঁদের কথা মতন না চললে খুন ও পরিবারের মহিলাদের ধর্ষণের হুমকিও দেওয়া হয় অভিনবকে।

অভিনবের ছবি ‘বেশরম’ মুক্তি পাওয়ার আগেই তাকে নিয়ে নেগেটিভ পাবলিসিটি করা হয় বলেও দাবি করেন তিনি। কিন্তু সুশান্তের মৃত্যুর পর বলিউডের এই ধরনের পক্ষপাতিত্বের বিরুদ্ধে লড়াই করার ডাক দিয়েছেন অভিনব কাশ্যপ।

সলমন খানকে বয়কট করার বার্তা দিয়ে পোস্টে অভিনব লিখেছেন, “এটা কোনো হুমকি নয়। এটা ওপেন চ্যালেঞ্জ। সুশান্ত সিং রাজপুত এগিয়ে গিয়েছেন এবং আমি আশা করি ও যেখানে আছে ভালো আছে। কিন্তু আমি এই ব্যাপারটা নিশ্চিত করব যে আর কোনো নিরীহ প্রাণ কে যেন এভাবে শেষ হতে না হয়। তাঁরা যেন সম্মান নিয়ে বলিউডে বেঁচে থাকতে পারেন। আমি আশা করি যাঁরা এই একই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন তারা আমার এই পোস্ট শেয়ার করবেন।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I