স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাহুল দা’র সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুব ভাল। আর যাঁদের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভালো তাঁদের নিয়ে আমি কোনও রাজনৈতিক মন্তব্য করব না। পদ না পেয়ে রাহুল সিনহার ক্ষোভ প্রসঙ্গে এমনই মন্তব্য করলেন সদ্য বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক অনুপম হাজরা।

শনিবার বিজেপির কেন্দ্রীয় পদাধিকারীদের নতুন তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। তাতে নাম নেই রাহুল সিনহার। দলের কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদে ছিলেন তিনি। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন দলে নবীন অনুপম হাজরা। সেখানেই ক্ষোভ প্রাক্তনের।

এদিন রাহুল সিনহা বলেন, “চল্লিশ বছর বিজেপির সেবা করেছি। দলের একজন সৈনিক হিসাবে কাজ করে এসেছি। জন্মলগ্ন থেকে বিজেপির সেবা করার পুরস্কার এটাই। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা আসছে সেজন্য আমাকে সরতে হবে। এর থেকে বড় দুর্ভাগ্য হতে পারে না। পার্টি যে পুরস্কার দিল সেই পুরস্কারের পক্ষে-বিপক্ষে কিচ্ছু আমি বলতে চাই না। আমি যা বলার ১০ থেকে ১২ দিনের মধ্যে বলব এবং ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা ঠিক করব।”

উল্লেখ্য, ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন অনুপম। গেরুয়া শিবির সূত্রে খবর, একাধিকবার ভোটে দাঁড়িয়েছেন রাহুল সিনহা। কিন্তু একবারও জিততে পারেননি। তাছাড়া কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদ প্রাপ্তির পর জাতীয়স্তরেও তাঁর কোনও ভূমিকা ছিল না বলেও মত দলের একাংশের। তাই তাঁকে সরিয়ে অনুপম হাজরার মত তরুণ ও শিক্ষিত মুখকেই বাছা হল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

রাহুল সিনহার ‘বিদ্রোহ’ প্রসঙ্গে অনুপম হাজরা কলকাতা 24×7-কে বলেন, “রাহুল দা’র সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুব ভাল। উনি হয়তো মানসিকভাবে একটু ডিপ্রেসড বলে এসব বলেছেন। যাঁদের সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভালো তাঁদের নিয়ে আমি কোনও রাজনৈতিক মন্তব্য করব না। এটাই আমার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য।” অনুপম বলেন, “কলকাতায় ফিরে এসে আমি রাহুল দা’র সঙ্গে চায়ের আড্ডা দেব।”

উল্লেখ্য, বর্তমানে দলীয় কাজে জেলাসফরে আছেন অনুপম। বলে রাখা প্রয়োজন , এদিন প্রকাশিত তালিকায় মুকুল রায়কে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অনুপম হাজরা পেয়েছেন কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদ। কেন্দ্রীয় মুখপাত্রের দায়িত্ব পেয়েছেন রাজু বিস্ত।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।