কলকাতা: আইপিএস রাজীব কুমারের কোনও খোঁজ নেই। জায়গায় জায়গায় তল্লাশি করেও কোনও লাভ হয়নি। বিরোধীরা নেতারা কেউ কেউ বলতে শুরু করেছেন ‘ভাইপো’র বাড়িতে লুকিয়ে আছেন রাজীব কুমার। নানা দিক থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাচ্ছেন বিরোধীরা। কারণ যাঁর জন্য মুখ্যমন্ত্রী ধর্নায় বসে গিয়েছিলেন, সেই আজ বেপাত্তা।

এবার অভিনব কায়দায় আক্রমণ বিজেপি নেতা অনুপম হাজরার। তাঁর দাবি তিনি নাকি খুঁজে পেয়েছেন রাজীব কুমারকে। তবে না, সশরীরে নয়, বইয়ের পাতায় রাজীব কুমার।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি ঘুরছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে একটি সাধারণ জ্ঞানের বইতে পুলিশ হিসেবে রাজীব কুমারের ছবি আছে। দাবি করা হচ্ছে ওই ছবিটি নাকি রয়েছে চতুর্থ শ্রেণীর সাধারণ জ্ঞানের বইতে। সেখানে, অন্যান্য পেশার সঙ্গে পুলিশের পেশা বোঝাতে একটি ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। সেই ছবিটি রাজীব কুমারের। লাল গোল করে ছবিটি চিহ্নিত করা হয়েছে। যদিও ছবিটার সত্যতা যাচাই করা হয়নি।

তবে অনুপম হাজরা ওই ছবিটি নিজের প্রোফাইলে ও পেজে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘একজন দুর্নীতিপরায়ণ, পলাতক পুলিশ অফিসারকে প্রাইমারির বইয়ের পাতায় দেখে চমকে যেতে হয়।’ তৃণমূল সরকার কীভাবে এরকম একজন অফিসারকে গুরুত্ব দিয়েছে সেই প্রশ্নই তুলেছেন তিনি।

বইটিতে আবার পুলিশের ভূমিকা সম্পর্কে লেখা আছে, ‘পুলিশরা সমাজকে বিভিন্ন দুষ্কৃতীদের কবল থেকে রক্ষা করেন। সাধারণ মানুষকে নিরাপদে রাখতে এবং সমাজে শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে সাহায্য করেন।’

স্বাভাবিকভাবেই অনুপম হাজরার সেই পোস্ট শেয়ার হচ্ছে হু হু করে।

গত ১০ দিনেরও বেশি হয়ে গিয়েছে কোনও খোঁজ নেই রাজীব কুমারের। দিল্লি-উত্তরপ্রদেশ থেকে বিশেষ দল কলকাতায় আসা রাজীবের তল্লাশিতে সাহায্য করতে। কিন্তু তারাও কোনও খোঁজ করতে পারেননি। কার্যত তাঁদের কাজে সিবিআই ক্ষুব্ধ হওয়াতে রাতারাতি তাঁদের ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

শনিবার সকালে সিবিআইয়ের একটি টিম সিআরপিএফের ক্যাম্পে যায়। সেখানে সিআরপিএফের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। সূত্রে জানা গিয়েছে, এবার কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের খোঁজে সিআরপিএফের সাহায্য নিতে পারে সিবিআই। আর তা কীভাবে করা সম্ভব তা নিয়েই এদিন মূলত সিআরপিএফের আধিকারিকদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।