সিউড়ি: ঝাড়খণ্ডে বিজেপি হারতেই এবার মশানজোড় বাঁধে রং করার অসমাপ্ত কাজ দ্রুত শেষ করা হবে বলে জানালেন তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। ঝাড়খণ্ডে ময়ূরাক্ষী নদীর উপর রয়েছে মশানজোড় বাঁধ। অবস্থান ঝাড়খণ্ডে হলেও বাঁধের রক্ষণাবেক্ষণ ও জল ছাড়ার দায়িত্ব, সবটাই পশ্চিমবঙ্গ সরকারের। বীরভূমের সিউড়ির সেচ দফতর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা হয় ঝাড়খণ্ডের মশানজোড় ড্যাম।

২০১৮ সালের অগষ্ট মাসে মশানজোড় ড্যামের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চলছিল৷ তখনই ওই ড্যামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পছন্দের নীল-সাদা রং করার কাজ শুরু হয়৷ আর এতেই তৈরি হয় বিপত্তি৷ ঝাড়খণ্ডে থাকা ড্যামে কেন নীল সাদা রং করা হচ্ছে সেই প্রশ্ন তুলে ড্যামে রং করার কাজ বন্ধ করে দেয় স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব৷ শুধু তাই নয়৷ মশানজোড় ড্যাম চত্বরে রাস্তার ওপর থাকা ওয়েলকাম গেটে বিশ্ববাংলার লোগো ও ওয়েস্ট বেঙ্গল লেখার ওপর ঝাড়খণ্ডের স্টিকার লাগিয়ে দেওয়া হয়।

এই ঘটনায় তুমুল বিতর্ক তৈরি হয়৷ জট কাটাতে উদ্যোগী হন বীরভূমের তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা শাসক ও সেচ দফতরের এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার৷ এমনকী দুমকা গিয়ে ঝাড়খণ্ড জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠকও করেন এরাজ্যের অফিসাররা৷ কিন্তু বৈঠকই সার৷ মশানজোড় ড্যাম নিয়ে সমাধানসূত্র রয়ে যায় অধরাই৷ বাঁধে রং করার কাজ অসমাপ্তই থেকে যায়।

সোমবার ঝাড়খণ্ড বিধানসভার ভোটের ফল ঘোষণা হয়েছে। ঝাড়খণ্ডের ভোটে পরাজিত হয়েছে গেরুয়া শিবির৷ আর পড়শি রাজ্য ঝাড়খণ্ডে বিজেপি হারতেই এবার মশানজোড় ড্যাম নিয়ে ফের সুর চড়িয়েছেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল৷ অনুব্রতর হুঁশিয়ারি, ‘ঝাড়খণ্ডের মানুষ ওদের তাড়িয়ে দিয়েছেন। এবার মশানজোড় বাঁধ নীল সাদা রঙে সাজিয়ে তোলা হবে’৷

ময়ূরাক্ষী নদীর জল ধরে রাখতে তৈরি হয়েছিল মশানজোড় বাঁধ৷ ঝাড়খণ্ডের দুমকা জেলায় হলেও মশানজোড় বাঁধের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পশ্চিমবঙ্গ সরকারের৷ এমনকী মশানজোড় থেকে জল ছাড়ারও দায়িত্ব বাংলার সরকারের৷ সিউড়ি সেচ দফতর থেকে মশানজোড় ড্যামের মনিটরিং চলে৷ মশানজোড় ড্যাম থেকে মুর্শিদাবাদ, বীরভূম ও বর্ধমানে চাষের জন্য জল সরবরাহ করা হয়৷