দেবযানী সরকার, কলকাতা: বিজেপির রাজ্য সভাপতি বললেই সব ঠিক আর আমি বললেই যত দোষ! দিলীপ ঘোষের পুলিশ পেটানোর মন্তব্য শুনে এমনই প্রশ্ন ছুঁড়লেন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। সোমবার পূর্ব মেদিনীপুরের মেছেদায় দলের একটি সভায় দিলীপ ঘোষ পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, “আমি মার্ডার না করেই মার্ডার কেসের আসামি হয়ে যাচ্ছি।তাহলে এবার পুলিশের ঘাড়ের উপর পা তুলে দাঁড়িয়ে পুরো পিষে মেরে ফেলব।সবই আমরা ডায়েরিতে নোট করে রাখছি।”

পুলিশের উদ্দেশে তিনি বলেন, “অতি বাড়াবাড়ি করো না, তা হলে এমন মার মারবো বাড়ির বউ-বাচ্চাও চিনতে পারবে না। হাসপাতালে পাঠিয়ে দেব। আর তা না হলে জঙ্গলমহল বা পাহাড়ে পাঠিয়ে দেব। সেখান থেকে আর বেরোতে পারবে না। রোজই পাবলিকের হাতে গণ ধোলাই খাবে। আমি কোন আইপিএস, আইএস, ডব্লুবিসিএসকে ভয় পাই না। অনেক সহ্য করেছি।”

ভোটের আগে দলীয় কর্মীদের পুলিশ পেটানো, পুলিশকে বোম মারার নিদান দিয়ে একাধিকবার বিরোধীদের তোপের মুখে পড়েছিলেন কেষ্টা। এবার বিরোধী দল বিজেপিও তাঁর পথ অনুসরণ করল। সুযোগ পেয়ে অনুব্রতও পাল্টা দিতে ছাড়লেন না।

দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য শুনে কলকাতা 24×7-কে কেষ্ট বলেন, “যেভাবে দিলীপ ঘোষ পুলিশকে হুমকি দিচ্ছেন তাতে মনে তিনি সাংসদ হওয়ার যোগ্যই নন।” এরপরই তিনি বলেন, “আমি তো কোনও বিধায়ক, সংসদ নয়। দলের একজন সামান্য কর্মী। আমি এধরনের কথা বললে, বিজেপি, সিপিএম, কংগ্রেস সব একসঙ্গে উঠেপড়ে লাগে। সন্ধ্যাবেলায় টিভি চ্যানেলে বসে বিশ্রামবাবুরা সব সমালোচনা শুরু করে দেন। আর এখন তাঁদের মনে হচ্ছে সাংসদ দিলীপ ঘোষ ঠিক কথা বলছেন। “