স্টাফ রিপোর্টার, বোলপুর: করোনাভাইরাসের প্রকোপ আর কতদিন থাকবে তার মোটামুটি একটা দিনক্ষণ জানিয়ে দিলেন বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

তাঁর দাবি ‘করোনার মেয়াদ এক বছর।’ শনিবার লাভপুরে তৃণমূলের এক কর্মীসম্মেলনে অনুব্রত বলেন, ‘করোনাভাইরাসের দাপট বছরখানেক থাকবে। সেজন্য ১ বছর বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সব মানুষ তো আর এই পরিস্থিতিতে কাজ পাবেন না। তাদের কথা মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।’

শনিবার লাভপুরে তৃণমূলের বুথভিত্তিক কর্মী সম্মেলন ছিল। সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের মেন্টর অভিজিৎ সিংহ, সাংসদ অসিত মাল, লাভপুর ব্লক সভাপতি তরুণ চক্রবর্তী, জেলা কমিটির সদস্য মান্নান হোসেন-সহ দলের নেতা ও কর্মীরা। সেখানে করোনা নিয়ে রাজ্য সরকারের উদ্যোগকে এভাবে ব্যাখ্যা করেছেন অনুব্রত মণ্ডল।

এরপর কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ”আপনারা সতর্ক হয়ে যান। পঞ্চায়েতে বা পঞ্চায়েত সমিতিতে বসে থাকবেন না। নিজের কাজ নিজে করুন। মানুষকে পরিষেবা দিন। সব মানুষ কাজ করতে পারবে না। তাদের পাশে দাঁড়ান।” করোনা নিয়ে নানা সময় নানা মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছেন অনুব্রত। এর আগে ভারতে করোনা সংক্রমণের জন্য নরেন্দ্র মোদীকে দায়ী করেছিলেন তিনি।

বলেছিলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পকে আমন্ত্রণ জানিয়ে আমদাবাদে আনায় করোনা ছড়িয়েছে ভারতে। নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করে অনুব্রত মন্ডল এও বলেছিলেন, “করোনা ভাইরাস এর থেকেও মারাত্মক ভাইরাস অ্যাটাক করেছে ভারতবর্ষকে, সেই ভাইরাসের নাম মোদী ভাইরাস।”

অন্যদিকে, বাংলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। শনিবারের হিসেব অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৪০০। শুক্রবার থেকে শনিবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯০৬ জনে।তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৯,৫৮৮ জন৷

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১,৩৪৪ জন।ফলে এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৮,৪৫৩ জনে ৷

আক্রান্ত ও মৃতের পাশাপাশি অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। একদিনে ৬১১ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন। ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৭,৯৫৯ জন। যা শতাংশের হিসেবে ৬৩.১১ শতাংশ৷

যে ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে, এদের মধ্যে কলকাতারই ১৬ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ৫ জন৷ হাওড়া ৪ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ১ জন৷

বাংলায় নতুন করে টেস্ট হয়েছে ১১,৪০৩ টি৷ তবেএই পর্যন্ত মোট টেস্ট হয়েছে ৬ লক্ষ ৫ হাজার ৩৭০ জনের৷ প্রতি মিলিয়নে টেস্ট ৬,৭২৬ জন৷ যা শতাংশের হিসেবে ৪.৭০ শতাংশ৷ এই মুহূর্তে সরকারি এবং বেসরকারি মিলিয়ে রাজ্যে ৫২টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে৷ আরও ১টি ল্যাবরেটরি অপেক্ষায় রয়েছে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ