কলকাতা: ইংলিশ ঘরানা থেকে আগামী মরশুমে আবারও স্প্যানিশ ঘরানায় ফিরছে এটিকে। আর পুরনো ঘরানায় ফিরতে ফের একবার গুরু হাবাসের শরণাপন্ন হচ্ছে আইএসএলের কলকাতা ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। সদ্য সমাপ্ত মরশুমে হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর ব্রিটিশ কোচ স্টিভ কপেলকে সরিয়ে পুরনোতেই আস্থা রাখল এটিকে টিম ম্যানেজমেন্ট।

কঠোর স্বভাবের হাবাস পাঁচ বছর আগে ইন্ডিয়ান সুপার লিগের উদ্বোধনী মরশুমে চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন কলকাতাকে। পরের বছরও দলকে তুলেছিলেন সেমিফাইনালে। কিন্তু অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় বিশাল অঙ্কের অর্থে ২০১৬-তে চলে যান এফসি পুণে সিটিতে। এটিকে’তে হাবাসের স্থলাভিষিক্ত হন জোসে মোলিনা। তিনি দ্বিতীয় বার চ্যাম্পিয়ন করেন কলকাতাকে। এর পরে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের সঙ্গেই কলকাতার সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ায় কলকাতায় শুরু হয় ইংলিশ জমানা।

কিন্তু ইংলিশ ঘরানার ফুটবলে শেষ দু’টি মরশুমে চূড়ান্ত ব্যর্থ হয় এটিকে। টেডি শেরিংহ্যাম, অ্যাসলে ওয়েস্টউড, স্টিভ কপেলের কেউই শেষ চারে তুলতে পারেননি কলকাতাকে। তাই শেষমেষ হৃত সম্মান পুনরুদ্ধারের জন্য ফের হাবাসেই আস্থা ফেরাল কলকাতা। আর পুরনো ক্লাবে ফেরা নিশ্চিত হতেই উচ্ছ্বাস চেপে রাখতে পারলেন না হাবাসও।

এক বিবৃতিতে হাবাস জানিয়েছেন, ‘এটিকে’তে ফিরতে পারা আমার কাছে গর্বের ব্যাপার। এটিকে দলটাকে ফের কোচিং করানোর ইচ্ছে বরাবরই ছিল। সমর্থকদের উন্মাদনা আগের মত থাকবে বলেই আমার বিশ্বাস। পুরনো পরিচিতি এবং ভালো ফল যেটা কলকাতার প্রাপ্য, সেটা ফিরিয়ে দেওয়াই প্রাথমিক লক্ষ্য।’

হাবাসকে দলের হেড কোচ হিসেবে ফিরিয়ে উচ্ছ্বসিত দলের মালিক সঞ্জীব গোয়েঙ্কাও। তিনি জানান, ‘এটিকে পরিবারকে স্বাগত। তাঁকে ফিরিয়ে আনতে পেরে আমি উচ্ছ্বসিত। আশা রাখছি পুরনো ক্লাবে তিনি তাঁর পরম্পরা বজায় রাখবেন।’

এদিকে স্টিভ কপেলসহ তাঁর সমস্ত কোচিং স্টাফকেই ছেঁটে ফেলেছে এটিকে ম্যানেজমেন্ট। শুধুমাত্র সঞ্জয় সেন ভারতীয় সহকারী হিসেবে থেকে যাচ্ছেন। প্রায় সমস্ত ভারতীয় খেলোয়াড়কে ধরে রাখার পাশাপাশি, জবি জাস্টিন, মাইকেল ব্রাদার্স, সালামরঞ্জন প্রমুখকে সই করানো হয়েছে। গার্সিয়া, লান্জা আর জনসনকে ধরে রাখার খবরও মিলছে। বাকি বিদেশি হাবাসের সঙ্গে আলোচনা করে তারপর নেওয়া হবে বলে জানা যাচ্ছে।