কলকাতা : ভালোবাসা মানে না সীমা! বোঝে না নারী-পুরুষ! দেখে না আপন-পর। নিজের নিয়মে, আপন ছন্দে সে বয়ে চলেছে অনন্তকাল ধরে । তাইতো শুধু প্রেমিকার গাল নয়, ঠোঁটের আদরে লাল হয় বন্ধুত্বের মুখ। ভালোবাসার ব্যারিকেডে বাঁধা পড়ল যীশু ও অঙ্কুশ! ক্যাপচার হল সেই মুহূর্ত। “selfless love” ক্যাপশনে যা ঘুরে ফিরছে ওয়াল টু ওয়াল।

 

আসলে বন্ধুত্ব এমন এক সম্পর্ক যার বাস ছকের বাইরে। নেই কোনও বাহ্যিক গতানুগতিকতা। আছে কেবল নিখাদ ভালবাসা। তাই ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে হারিয়ে যাওয়া বন্ধুত্বের নয়া নজির যীশু-অঙ্কুশ। যদিও শুরুটা ছিল সহকারি অভিনেতা দিয়ে। কিন্তু তা বন্ধুত্বের মোড়ক লাগতে বেশি সময় নেয়নি। ‘ডান্স বাংলা ডান্স’র সেটে জমে উঠেছে এই নিঃস্বার্থ ভালোবাসার কাহিনি। আর শ্যুটিং ফাঁকে বন্ধুত্বের খুনসুটিতে মশগুল নেট দুনিয়া।

এদিকে হলিউড, বলিউডের পর এবার নাচ-কে কেন্দ্র করে ছবি তৈরি হবে টলিউডে। এই ছবির জন্য নিজেকে গড়ে পিটে তৈরি করছেন অঙ্কুশ। ছাপোষা বাঙালি চেহারায় এনেছেন প্যাক। নাচের প্রশিক্ষণও নিচ্ছেন জোর কদমে।

প্রসঙ্গত, টলিউডের হার্টথ্রব অঙ্কুশের মন জুড়ে রয়েছেন সুন্দরী টেলি-নায়িকা সে নিয়ে কোন লুকোছাপা নেই৷ ঐন্দ্রিলা ও অঙ্কুশ একে অপরের প্রেমের নেশায় যে কতটা বুঁদ তার প্রমাণ সোশ্যাল মিডিয়া৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.