কলকাতা, করোনা আতঙ্ক এসে পৌঁছেছে বাংলাতেও। ইতিমধ্যেই করো না আক্রান্ত পজিটিভ একজন তরুণের খোঁজ পাওয়া গেছে। সে এই মুহূর্তে বেলেঘাটা আইডি তে ভর্তি। আর সেই জন্যই বাংলায় অন্যান্য রাজ্যের মতোই অতিরিক্ত সর্তকতা জারি করা হয়েছে। ভারতে এই মুহূর্তে করোনাভাইরাস স্টেজ টু তে রয়েছে।

চেষ্টা চালানো হচ্ছে যাতে স্টেজ টু-এর থেকে করোনা ভাইরাস বেশি প্রভাব না ফেলতে পারে। আর তাই বলা হচ্ছে, বিদেশ থেকে যারাই কলকাতায় ফিরছেন তারা যেন প্রথমেই কোয়ারেন্টাইনে যান। কিন্তু গায়ক তথা অভিনেতা অঞ্জন দত্ত বিদেশ থেকে ফিরে সোজা পৌঁছে গেলেন জমায়েতে। আর এই নিয়ে তৈরি হয়েছে বিতর্ক।

মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়া থেকে ফিরেছেন অঞ্জন দত্ত। সঙ্গে ছিলেন তার ব্যান্ডের সদস্যরাও। কিন্তু বিদেশ থেকে ফিরে কোয়ারেন্টাইনে যাননি তিনি।
বরং বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের এক জমায়েতে পৌঁছে যান। এমনকি, বিদেশ থেকে ফিরেই অজস্র মানুষের সংস্পর্শে এসেছেন তিনি। এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে তাঁকে।

সরকার নির্দেশ দিয়েছে,বিদেশ ফেরত যে কোনও মানুষের ক্ষেত্রে যেখানে চোদ্দো দিন কোয়ারেন্টাইন থাকতে হবে। কিন্তু সেখানে অঞ্জন দত্তের এই ভূমিকা নাগরিক হিসেবে কতটা দায়িত্বশীল তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

যদিও গায়ক বলছেন, বিমানবন্দরে তাদের পরীক্ষা করা হয় এবং প্রত্যেককেই সুস্থ বলে ছেড়ে দেওয়া হয়। তাই সেই জামায়াতে উপস্থিত থেকে ছিলেন তিনি। অঞ্জন দত্তের দাবি, মাত্র কয়েক মিনিটের জন্যই তিনি সেখানে ছিলেন। কোন খাওয়া-দাওয়া করেননি এবং কারো সঙ্গে করমর্দন করেন নি। বেশ দূরত্ব বজায় রেখেই সকলের সঙ্গে কথা বলেছেন। এছাড়াও বিভিন্ন অনুষ্ঠান এই করোনা আতঙ্কের জেরে তিনি ইতিমধ্যেই বাতিল করেছেন বলে জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত আজ বুধবার বিদেশ থেকে ফিরেছেন অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী, অভিনেতা জিৎ, বিশ্বনাথ বসু। বিদেশ থেকে ফিরে বিমানবন্দরে পরীক্ষার পর তারা নিজেদের আলাদা রাখার জন্য হোম কোয়ারেন্টাইন এর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। করুনা সংক্রমণ যাতে অধিক মাত্রায় ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অভিনেতারা।

উল্লেখ্য এই মুহূর্তে ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬৯ জন৷ মারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। তিনজনই দেশের প্রবীণ নাগরিক। বাংলাতেও একজনের শরীরে ইতিমধ্যেই পজেটিভ করোনাভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। ফলে সারা রাজ্য জুড়ে সর্তকতা জারি আছে। বন্ধ রয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বিভিন্ন অফিস।