লন্ডন: চলতি মাসের শেষে শুরু হচ্ছে ইউএস ওপেন। করোনা আবহে যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে, প্রতিযোগীদের কথা মাথায় রেখে যুক্তরাষ্ট্র টেনিস অ্যাসোসিয়েশন জৈব নিরাপত্তার কড়া বলয় তৈরি করতে চলেছে। উদ্যোক্তাদের দাবি মারণ ভাইরাস থেকে প্লেয়ারদের সুরক্ষিত রাখার বিষয়টিকেই সর্বাগ্রে প্রাধান্য দিচ্ছেন তাঁরা। এমন সময় উদ্যোক্তাদের থেকে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে কোয়ারেন্টাইন আশ্বাস চাইলেন ব্রিটেনের টেনিস তারকা অ্যান্ডি মারে।

প্রাক্তন বিশ্বের পয়লা নম্বর টেনিস তারকার কথায়, প্লেয়াররা উদ্যোক্তাদের কাছ থেকে আশ্বাস চাইছে মার্কিন মুলুক থেকে ইউরোপে ফেরার পর তাঁদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে যাতে থাকতে না হয়। কারণ সেক্ষেত্রে ফরাসি ওপেন শুরুর আগে প্রস্তুতির জন্য মাদ্রিদ এবং রোমে জোড়া মেজর ক্লে-কোর্ট টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারবেন না প্রতিযোগীরা। আর সে কারণেই ইউএসটিএ’র কাছে এই আশ্বাস চেয়েছেন মারে। ফরাসি ওপেনের আগে ১৩-২০ সেপ্টেম্বর মাদ্রিদ এবং ২০-২৭ সেপ্টেম্বর রোমে অনুষ্ঠিত হবে ক্লে-কোর্ট টুর্নামেন্ট দু’টি।

১৩ সেপেটেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ইউরোপে ফেরার পর দু’সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হলে ওই দু’টি টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারা যাবে না। তাই ব্রিটিশ মিডিয়াকে ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে সোনাজয়ী বলেন, ‘আশা করি দেশ ছাড়ার আগে এব্যাপারে নিশ্চয়তা পেয়ে যাব।’ শুধু টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের জন্যই নয়। কোনও প্রতিযোগী ইউএস ওপেনের শেষ অবধি দৌড় বজায় রাখলে তারপর দেশে ফিরে কোয়ারেন্টাইন শেষ করে ফরাসি ওপেনে যোগদানের বিষয়টি কোনওভাবেই সম্ভব হবে না বলেও জানিয়েছেন মারে।

উল্লেখ্য, করোনা আবহে চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের প্রস্তুতি টুর্নামেন্ট সিনসিনাটি থেকে সরে গিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে নিউ ইয়র্কে। ২০-২৮ অগস্ট ওই টুর্নামেন্ট খেলেই যুক্তরাষ্ট্র ওপেনে যোগ দেবেন প্রতিযোগীরা। মার্কিন মুলুকে সর্বপ্রথম কোভিড১৯ হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত হয়েছিল ইউএস ওপেনের আয়োজক শহর নিউ ইয়র্ক। সেখানে সংক্রমণের হার বর্তমানে কমলেও পরিস্থিতি উদ্বেগজনক ফ্লোরিডা, টেক্সাস কিংবা ক্যালিফোর্নিয়ার মতো বড় শহরগুলিতে। পরিস্থিতি আঁচ করে গত বৃহস্পতিবার ইউএস ওপেন থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বর্তমান বিশ্বের পয়লা নম্বর মহিলা টেনিস প্লেয়ার অ্যাশলে বার্টি। আর ঠিক তার পরদিন যুক্তরাষ্ট্র টেনিস অ্যাসোসিয়েশন জানিয়ে দিয়েছিল, ‘ইউএস ওপেন এগোবে পরিকল্পনামাফিকই।’

গত শুক্রবার এক বিবৃতিতে ইউএসটিএ জানিয়েছে, ‘সকল প্লেয়ার এবং টুর্নামেন্টের সঙ্গে জড়িত প্রত্যেকের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রদান করাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। আমরা সে বিষয়ে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। ইউএসটিএ খুব শীঘ্রই নিরাপত্তা সংক্রান্ত নির্দেশিকা প্রকাশ করবে।’

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা