নিউ ইয়র্ক: মার্গারেট কোর্টকে ছোঁয়ার অপেক্ষা দীর্ঘায়িত হল সেরেনা উইলিয়ামসের। গতবার ফাইনালে জাপানের নাওমি ওসাকার কাছে হেরে হাতছাড়া হয়েছিল সপ্তম যুক্তরাষ্ট্র ওপেন খেতাব। শনিবাসরীয় আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামে সেরেনাকে হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের নতুন রানি হলেন কানাডার বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু। ঘরের কোর্টে জনসমর্থন সেরেনার দিকে থাকলেও মার্কিন তারকাকে প্রায় হেলায় হারিয়ে প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের স্বাদ পরখ করে নিলেন ১৯ বছরের বিয়াঙ্কা। খেলার ফল সেরেনার বিপক্ষে ৩-৬, ৫-৭।

সালটা ১৯৯৯। মাত্র ১৭ বছর বয়সে এই যুক্তরাষ্ট্র ওপেনেই কেরিয়ারের প্রথম মেজর জিতেছিলেন সেরেনা। বিশ বছর বাদে শনিবার সেখানেই মার্কিন তারকার কাছে ছিল মার্গারেট কোর্টের সর্বাধিক মেজর জয়ের রেকর্ড স্পর্শ করার হাতছানি। অন্যদিকে সেরেনা ছাড়াও সদ্য যৌবনে পা দেওয়া আন্দ্রেস্কুর প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম ফাইনালে এদিন অন্যতম বড় প্রতিপক্ষ ছিল আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামের গ্যালারি। কেরিয়ারের চতুর্থ মেজর টুর্নামেন্টের ফাইনালে সেই সবকিছুকেই জয় করলেন বছর ঊনিশের বিয়াঙ্কা। সেইসঙ্গে প্রথম কানাডিয়ান হিসেবে গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের নজির গড়লেন তিনি। ম্যাচ শেষে মজার ছলে বললেন, সেরেনা অনুরাগীরা যেন তাঁকে ক্ষমা করে দেয়।

কেরিয়ারের প্রথম মেজর ফাইনালে শুরু থেকেই সেরেনার উপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকেন বিয়াঙ্কা। সেরেনার ডাবল ফল্টের সুযোগ নিয়ে প্রথম সেটে ৪-২ ব্যবধানে লিড নেন কানাডিয়ান। পিছিয়ে থাকা অবস্থায় এস ও বিধ্বংসী গ্রাউন্ডস্ট্রোকে ব্যবধান কমিয়ে ম্যাচে ফেরার ইঙ্গিত দেন সেরেনা। কিন্তু সেই সুযোগ খুব একটা প্রশস্ত হতে দেননি বিয়াঙ্কা। সেরেনাকে দাঁড় করিয়ে শেষ দু’টি গেম জিতে নেন প্রথমবার কোনও মেজর ফাইনালে পা রাখা বিয়াঙ্কা। সেইসঙ্গে ৬-৩ ব্যবধানে প্রথম সেট মুঠোয় পুড়ে নেন কানাডিয়ান তরুণী।

দ্বিতীয় সেটে কিংবদন্তি সেরেনার সামনে আরও দাপুটে মেজাজে ধরা দেন আন্দ্রেস্কু। মার্কিন তারকাকে কার্যত ব্যাকফুটে ঠেলে ৫-১ ব্যবধানে লিড নিয়ে নেন তিনি। এরপর বিনাকা যখন প্রথম চ্যাম্পিয়নশিপ পয়েন্টে দাঁড়িয়ে, ঠিক তখন গ্যালারির প্রবল জনসমর্থনকে হাতিয়ার করে মেগা ফাইনালে মরণকামড় দেন সেরেনা। অভিজ্ঞ সেরেনার বিষ মাখানো সার্ভিস, দুরন্ত সব ফোরহ্যান্ডের সামনে হঠাৎই ফ্যাকাশে লাগতে শুরু করে বিয়াঙ্কাকে। দু’দশকের অভিজ্ঞতা ও গ্যালারির সমর্থনকে কাজে লাগিয়ে দ্বিতীয় সেটে একসময় সমতায় ফেরেন সেরেনা (৫-৫)।

কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। ফের সেরেনার ডাবল ফল্টের সুযোগ কাজে লাগিয়ে ব্রেক পয়েন্ট দখলে নিয়ে বাজিমাত করে যান বিয়াঙ্কা। শেষ অবধি টাইব্রেকারে গড়ানোর আগেই ৭-৫ ব্যবধানে দ্বিতীয় সেট সেইসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ওপেন খেতাব নিজের নামে করে নেন কানাডিয়ান লেডি। ম্যাচ শেষে বিয়াঙ্কাকে অভিনন্দন জানান সেরেনা। পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের নতুন রানি জানান, ‘এই মুহূর্তটার জন্য প্রচুর পরিশ্রম করেছি। অবশেষে স্বপ্ন সত্যি হল। সেরেনার মত কিংবদন্তির বিরুদ্ধে এমন মঞ্চে খেলতে পারা অভাবনীয় একটা ব্যাপার।’