লিসবন: আগের মরশুমে বার্সেলোনার সবথেকে বড় সমস্যা ছিল ধারাবাহিকতা৷ সেই সমস্য এখনও দূর করতে পারেননি নতুন কোচ ভালভার্দে৷ এক ম্যাচে গোলের বন্যা তো অন্য ম্যাচে গোল জন্য হা-পিত্যেশ করে বসে থাকা৷ এইরকমই ঘটল বুধবার৷ ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর প্রাক্তন ক্লাব স্পোর্টিং লিসবনের বিরুদ্ধে কোনওক্রমে জয় পেলেন মেসিরা৷ স্পোর্টিং ডিফেন্ডার কোয়োটাসের আত্মঘাতী গোল ব্যর্থতা ঢাকল মেসি-সুয়ারেজদের৷

আরও পড়ুন: যুবভারতীতে ট্রফি খরা কাটাতে চায় ব্রাজিল

শুরু থেকেই দুই দলের লড়াই হয়েছে সমানে সমানে৷ মেসি, সুয়ারেজরা যখনই স্পোর্টিং-রক্ষণে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন, বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছিলেন ম্যাথিউ-কোয়েন্ত্রাওরা৷ প্রথমার্ধের ৪২ মিনিটে কোয়েন্ত্রাও মেসির মুখের গ্রাস কেড়ে নেন দারুণ এক ট্যাকল করে৷ মেসির এই সুযোগ বাদ দিলে প্রথমার্ধে সেভাবে সুযোগ পায়নি বার্সা৷ রাকিতিচ, ইনিয়েস্তারা মাঝ মাঠে ছিলেন একেবারেই অনুজ্জ্বল৷ দুজনেই বেশ কিছু ভুল পাস দিয়েছেন, সুয়ারেজও ঠিক সপ্রতিভ ছিলেন না৷

আরও পড়ুন: পেনাল্টির দাম ১ মিলিয়ন ইউরো !

মেসি একাই লড়ছিলেন৷ তবে প্রাক্তন সতীর্থ ম্যাথিউ-এর কাছে বারবার আটকে যাচ্ছিলেন৷ শেষ পর্যন্ত গোলের জন্য ভাগ্যের সহায়তাই দরকার হলো বার্সার৷ মেসির ফ্রি-কিক থেকে হেড করে সুয়ারেজ জালে রেখেছিলেন বলটা৷ সেবাস্তিয়ান কোয়াতেস কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখেন, বলটা তার গায়ে লেগে জড়িয়ে গেছে জালে৷ এই মরশুমে সবমিলিয়ে চারটি আত্মঘাতী গোল পেল বার্সা, এর চেয়ে বেশি গোল পেয়েছেন শুধু লিওনেল মেসি৷

আরও পড়ুন: ৪০০-র মাইলস্টোন ম্যাচে জোড়া গোল CR7-এর

এরপরও স্পোর্টিংও রক্ষণ পরীক্ষা দিয়ে গেছে, ম্যাথিউ দারুণ ট্যাকলে আরেক বার রুখে দিয়েছেন পুরনো সতীর্থ মেসিকে৷ সুযোগ পেয়েছিল স্পোর্টিংও, কিন্তু টের স্টেগেনের দুর্দান্ত সেভ করয়া সমতা ফেরাতে পারেনি তারা৷ শেষ দিকে বরং পাউলিনহোই ভালো একটা সুযোগ পেয়েছিলেন৷ কিন্তু কাজে লাগাতে পারেননি৷

আরও পড়ুন: স্লেজিংয়ের দাওয়াই হতে পারে এবার রেড কার্ড

এই গ্রুপের অন্য ম্যাচে জয় পয়েছে জুভেন্তাস৷ বার্সার সঙ্গে আগের ম্যাচ হারার পর অবশ্য এদিন ফিরে এসেছে জুভেন্টাস৷ ৬০ মিনিটে পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নামা হিগুয়েন ও ক্রোয়েশিয়ান তারকা মারিও মানজুকিচের গোলেই অলিম্পিকোসের বিরুদ্ধে জয় পয়েছে জুভে৷