মুম্বইঃ সবে ছবির ফার্স্ট লুক প্রকাশিত হয়েছে। আর তার মধ্যেই কুড়িয়েছে ভুরি ভুরি প্রশংসা। কথা হচ্ছে অনভিতা দত্ত গুপ্তের আপকামিং ছবি ‘কালা’ নিয়ে। এই ছবির ফার্স্ট লুক দেখে প্রশংসিত টুইট করলেন বিগ বি অমিতাভ বচ্চন।

বিগ বি ছবিটির প্রতি উৎসাহ, প্রশংসা এবং সমর্থন জানিয়ে টুইট করে লিখেছেন, ‘অনভিতা জি এবং সবার জন্যে আমার শুভ কামনা রইল। একটু অন্য রকম দেখাচ্ছে এখানে সবাইকে। পাশাপাশি এটি তৈরির কাজ দেখতেও ভালো লাগছে।’ বচ্চন লেখাটির সঙ্গে সিনেমা তৈরির একটি ছোট ভিডিও ক্লিপও শেয়ার করেছেন। ছবির ডিরেক্টর এবং রাইটারের এই নতুন উদ্যোগটির জন্যে আগেও প্রশংসিত হয়েছেন তারা।

ছবিতে অভিনয় করছেন প্রয়াত ইরফান খানের ছেলে বাবিল খান, তৃপ্তি দামড়ি, স্বাস্তিকা মুখার্জী। প্রসঙ্গত, ইরফান খানের সঙ্গে সুজিত সরকারের পরিচালনায় ‘পিকু’তে কাজ করেছেন অমিতাভ বচ্চন। এই ছবিতে দীপিকা পাডুকনও ছিলেন।

‘কালা’র প্রযোজনায় রয়েছেন আনুষ্কা শর্মা ও তার ভাই কামেশ শর্মার প্রডাকশন হাউস ক্লিন স্লেট ফিল্মস। বাবিলের এটি বলিউড ডেবিউ ছবি। অন্যদিকে তৃপ্তির এটি দ্বিতীয় কাজ। তার প্রথম কাজও ছিল অনভিতার পরিচালনায় এবং অনুষ্কার প্রযোজনায় ‘বুলবুল’। প্রথম ছবিতে তৃপ্তি বেশ প্রশংসিত হয়েছেন এবং দর্শক তাকে বেশ পছন্দও করেছেন। কিছুদিন আগে তৃপ্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘কালা’র প্রথম শিডিউলের শুটিং শেষ করার কথা জানিয়েছিলেন। তিনি টুইট করে লিখেছিলেন, ‘ছবির প্রথম শিডিউলের শুটিং শেষ করে খুবই ভালো লাগছে। আমি ভীষণ আনন্দিত এবং উৎসাহিত এমন অসাধারণ এবং উদ্যমী মানুষগুলোর সঙ্গে দ্বিতীয়বার কাজ করতে পেরে।’

মূলত মা ও মেয়ের ভালোবাসার গল্পকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে ‘কালা’। সংবাদ মাধ্যমে অনভিতা জানিয়েছেন, ‘একটা মা – মেয়ের সম্পর্ক অনেক পবিত্র হয় এবং সঙ্গে অনেক জটিলতাও থাকে এই সম্পর্কে। কালা ভীষণ সুন্দর এবং মন ছুঁয়ে যাওয়া ষ্টোরি যেখানে একটি মেয়ে তার মায়ের ভালবাসা পাওয়ার চেষ্টা করে। বাবিল, তৃপ্তি, স্বাস্তিকার মত অভিনেতারদের সঙ্গে কাজ করে আমার খুবই ভালো লেগেছে। আমি অধির আগ্রহে আছি সারা বিশ্বের সামনে ছবিটি তুলে ধরার জন্যে।’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.