স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: একদিকে প্রচারে অভিনবত্ব, অন্যদিকে দলের নেতা কর্মী ও ভোটাদের মনে আস্থা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এবার কলকাতায় অমিত শাহের রোড শোয়ের আয়োজন বিজেপির৷

রাজ্য বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামী ১৭ মে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি কলকাতায় এই রোড শো করবেন৷ ধর্মতলার মেট্রো চ্যানেল থেকে নেতাজির পৈত্রিক ভিটে সিমলা স্ট্রিট পর্যন্ত হবে এই রোড শো৷

১৯শের ভোটে বাংলাই গেরুয়া শিবিরের পাখির চোখ৷ প্রথমে ২৩টি আসনের টার্গেট থাকলেও পরে তা বাড়িয়ে দেন পদ্ম শিবিরের চাণক্য৷ আর সোমবার ঝাড়গ্রামে এসে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছেন পশ্চিমবঙ্গে ৪২টির মধ্যে ১০টি আসন তৃণমূল পাবে কিনা সন্দেহ৷

দেশাত্ববোধ, উন্নয়ন, মেরুকরণ নিয়ে প্রচারের ময়দান জমিয়ে দিয়েছে বিজেপির প্রথম সারির নেতারা৷ বাংলা দখলের লক্ষ্যে এই পরিস্থিতিতে বারে বারে রাজ্যে আসছেন মোদী, অমিত শাহরা৷ ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী ও অমিত শাহের বাংলার বুকে ১০টির অধিক সভা হয়ে গিয়েছে৷ এবার রোড শোয়ের আয়োজন৷ শহর কলকাতার দুটি লোকসভা ভোটর যা রাজনৈতির তাৎপর্যবাহী বলেই মনে করা হচ্ছে৷

মমতার খাস তালুক দক্ষিণ কলকাতা৷ বিজেপি কলেবরে বাড়লেও সেখানে লোকসভায় সাফল্যের সম্ভাবনা কম বলে মনে করছে বিজেপির থিঙ্ক ট্যাঙ্ক৷ তুলনায় পরিস্থিতি অনেকটাই সুবিধাজনক কলকাতা উত্তরে৷ তাই ভোটের দিন দুয়েক আগে কর্মীদের উদ্যম বৃদ্ধিতে ধর্মতলা থেকে সিমলে পর্যন্তই রোড শোয়ের চিন্তাভাবনা পদ্ম শিবিরের নেতাদের৷

আরও পড়ুন: তিন বিজেপি নেতাকে চোখের সামনে অপহরণ, অভিযোগ হিমন্ত বিশ্বশর্মার

পরিসংখ্যান বলছে ২০১৪ সালের লোকসভায় উত্তর কলকাতায় জয় না আসলেও বিজেপির রাহুল সিনহা ছিলেন দ্বিতীয় স্থানে৷ ২০০৯-য়ের তুলনায় বিজেপির ভোট বেড়েছিল ২১.৬৬ শতাংশ৷ তৃণমূলের সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভোটের ব্যবধ্যান ছিল ৯৬ হাজার ২২৬টি৷ যা ভরসা বাড়িয়েছে বিজেপির৷ তাই কলকাতা উত্তরেই প্রচারের ঝাঁঝ বাড়িয়ে বাজি মাত করচে মরিয়া গেরিয়া বাহিনী৷

কলকাতা উত্তর ও দক্ষিণে প্রতিষ্ঠান বিরোধীতা সক্রিয় বলে মনে করছে মোদী, শাহরা৷ যাকে কাজে লাগাতে চাইছে বিজেপি৷ ইতিমধ্যেই এই দুই কেন্দ্র ও পার্শ্ববর্তী যাদবপুর ও দমদমে ভালো ফলের আশায় ত্রিপুরার ভোট যুদ্ধের অন্যতম নায়ক সুনীল দেওধরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে৷

তবে, অমিত শাহের রোড শোকে আমল দিতে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস৷ দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের কাছে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি কাজে লাগে না৷ ওদের বাংলা জয়ের আশা শেষ৷ তাই ভয় পেয়েই এবার রোড শো করতে হচ্ছে অমিত শাহকে৷’’