নয়াদিল্লি: জনমত সমীক্ষা বলছে ফের ফিরছেন মোদী৷ ফলে বিজেপির পালে নতুন করে হাওয়া৷ প্রো ইনকামবেন্সি ফ্যাক্টর যে এভাবে কাজ করবে, বুঝে পারেননি স্বয়ং মোদী-শাহ জুটিও৷ তাই হয় সাংবাদিক সম্মেলনে অত হতাশ চেহারায় ক্যামেরার লেন্স ধরেছিল নরেন্দ্র মোদীকে৷

তবে পাশা বদলেছে৷ বুথ ফেরত সবকটি সমীক্ষাই বলছে কেন্দ্রে পের ক্ষমতায় বিজেপি৷ এবার নতুন করে পথ ঠিক করার সময়৷ তাই ২৩ তারিখের আগেই ঘর গোছাতে শুরু করছেন অমিত শাহ৷ সেই লক্ষ্যেই মঙ্গলবার নয়াদিল্লির গেরুয়া শিবিরের সদর দফতরে শরিকদের নিয়ে বৈঠকে বসছে শাহ৷ সঙ্গে থাকছে নৈশভোজের এলাহি ব্যবস্থা৷

বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন বিদায়ী মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্যরাও৷ বিভিন্ন জনমত সমীক্ষা বলছে এনডিএ জোট এবার ৩০০-রও বেশি আসন ধরে রাখতে সক্ষম হবে৷ অবশ্য এই ভবিষ্যতবাণীতে সিলমোহর পড়বে ২৩ তারিখ৷ তবে বুথ ফেরত সমীক্ষাগুলিকে গুরুত্ব দিচ্ছে বিজেপি৷ যদিও, একাধিক সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাতকার দেওয়ার সময় তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উড়িয়ে দিয়েছেন এই এক্সিট পোলকে৷

আরও পড়ুন : অন্তত ৩৫০ আসনে NDA-কে এগিয়ে রাখছে ‘টুডে’জ চাণক্য’র সমীক্ষা

নিউজ২৪-চাণক্যের সমীক্ষা বলছে ৩৫০ টি আসন পাবে এনডিএ৷ আজতক-ইণ্ডিয়া টুডে-অ্যাক্সিস বলছে ৩৩৯ থেকে ৩৬৫টি আসনের শিঁকে ছিঁড়বে৷ নিউজ ১৮-আইপিএসওএস বলছে ৩৩৬টি, টাইমস নাও- ভিএমআর ৩০৬ টি আসনে রাখছে এনডিএকে৷

অনেক বুথ ফেরত সমীক্ষা আবার বলছে, উত্তরপ্রদেশে এনডিএকে কড়া টক্কর দিতে পারে এসপি-বিএসপি জোট৷ ২০১৪ সালের ৭১ আসন পাওয়া বিজেপি এবার হয়তো তার অর্ধেক আসনও পাবে না যোগী রাজ্যে৷ ফলে গোবলয়ের এই গুরুত্বপূর্ণ রাজ্যে কিছুটা হলেও চিন্তায় রয়েছে বিজেপি৷

যদিও বুথ ফেরত সমীক্ষায় চমকে দিয়েছে বাংলা৷ সমীক্ষা বলছে পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনের মধ্যে ১১টি পেতে চলেছে বিজেপি৷ ৯টি আসন বাড়িয়ে মুকুল রায়কে স্বস্তি দিয়ে বাংলায় ফুটতে চলেছে পদ্মফুল৷ অন্যদিকে ২৯টি আসন পাবে তৃণমূল, বলছে সমীক্ষা৷ শতাংশের হিসেবে বিজেপির দখলে ৩১.৮৬ শতাংশ৷ কংগ্রেসের শিকে ছিড়বে ৮.৮ শতাংশ৷ তৃণমূলের দখলে ৩৯.১ শতাংশ ও বামেদের ভাগ্যে জুটেছে ১৫.৯ শতাংশ ভোট৷

আরও পড়ুন : Exit Poll-এর রিকাউন্টিংয়ের দাবি মমতার, ট্যুইট বাবুলের

উত্তর ভারতে উত্তরাখণ্ড, হিমাচল প্রদেশের মত রাজ্যগুলিতে ক্ষমতায় থাকছে বিজেপি৷ তবে ব্যতিক্রম জম্মু কাশ্মীর৷ সেখানে কংগ্রেস ৬টি আসনের মধ্যে পাবে ৪টি আসন, বিজেপি ২টি আসন পাবে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ তবে কংগ্রেস ধাক্কা খাচ্ছে কর্ণাটকে৷ সেখানে ২৮টি আসনের মধ্যে ২০টিই পাচ্ছে বিজেপি, বলছে সমীক্ষা৷ সবমিলিয়ে ফের বিজেপির পালে হাওয়া৷ শেষ মুহূর্তে তুরুপের তাস প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে ব্যবহার করেও বিশেষ লাভ হল না কংগ্রেসের৷ সেখানেই কাজ করে গিয়েছে মোদী-শাহ ম্যাজিক৷

তবে বিজেপির এই ক্লিন সুইপকে ভোটগণনার দিনের আগে মানতে চাইছে না বিরোধীরা৷ তাদের দাবি, গেরুয়া শিবিরের প্রভাবিত মিডিয়ার বানানো খবর এই সবই৷ সবই নাকি ‘গসিপ’৷ কংগ্রেসের পক্ষ থেকে মুখ খুলেছেন শশী থারুর৷ গোটা সমীক্ষাকে ভুল বলে দাবি করেছেন তিনি৷ ট্যুইট করে অস্ট্রেলিয়ার নির্বাচনে বুথ ফেরত সমীক্ষার ভুল প্রমাণিত হওয়ার উদাহরণ তুলে ধরেছেন তিনি৷