নয়াদিল্লি: অমিত শাহের রোড শো-কে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার বিদ্যাসাগর কলেজ৷ ভাঙা হয়েছে বিদ্যাসাগরের মূর্তি। আর এই ঘটনার পর থেকেই একে অপরকে দোষারোপ করছে তৃণমূল ও বিজেপি। এই পরিস্থিতিতে মুখ খুললেন ডেরেক ও’ব্রায়েন।

বুধবার দিল্লি থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে ডেরেক বলেন, ‘অমিত শাহ একজন মিথ্যাবাদী। ভিডিওতে রয়েছে প্রমাণ।’ এই ভিডিও প্রমাণ নিয়েই তিনি নির্বাচন কমিশনে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন ডেরেক ও’ব্রায়েন।

মঙ্গলবার বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে বিদ্যাসাগর কলেজে বিদ্যাসাগরের একটি মূর্তি ভেঙে ফেলে একদল দুষ্কৃতী৷ সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় অমিত শাহের রোড শো থেকে কিছু কর্মী সমর্থক বিদ্যাসাগরের মূর্তি বাইরে ফেলে ভাঙছে৷ যদিও কে বা কারা ওই মূর্তি কলেজের ভিতর থেকে বাইরে নিয়ে এল তা দেখা যায়নি ভিডিওটিতে৷

এদিন ভিডিওটি সাংবাদিক বৈঠকে দেখান তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন। তিনি বলেন, বিজেপির গুণ্ডারা ভেঙেছে ওই মূর্তি। বলেন, ‘কলকাতার রাস্তায় ছড়িয়ে পড়ে বিস্ময় আর ক্ষোভ। কাল যা হয়েছে, তা বাঙালির গর্বে আঘাত করেছে।

তাঁর আরও অভিযোগ, ধ্বংসলীলা চালানোর সময় স্লোগান শোনা গিয়েছে, ‘বিদ্যাসাগর ফিনিশড, হোয়্যার ইজ দ্য জোশ’। তাঁর আরও দাবি, অন্য একটি ভিডিওতে হোয়াটসঅ্যাপে ছড়িয়েছে যেখানে অমিত শাহের রোড শো’তে রড ও অস্ত্র নিয়ে আসতে বলা হচ্ছে।

অন্যদিকে, সাংবাদিক বৈঠক করেন অমিত শাহও। তিনি বলেন, সিআরপিএফ না থাকলে রোড শো থেকে বেঁচে ফেরা সম্ভবপর হত না৷

পাশাপাশি তিনি এও স্পষ্ট করে দিয়েছেন, ‘ভোট ব্যাংকের রাজনীতির জন্য তৃণমূলের গুন্ডারাই এই মূর্তি ভেঙেছে৷ এফআইআর দায়ের করেছে৷ কিন্তু এসবে আমাকে আটকানো যাবে না৷ আগামী ২৩ তারিখেই ছবি স্পষ্ট হয়ে যাবে, দিদির সময় শেষ হয়ে আসছে৷ ২৩-এর বেশি আসনে বাংলায় আধিপত্য হবে বিজেপিরই৷’