স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সাংবাদিক সম্মেলনের মাঝেই নিজের বিরক্তি প্রকাশ করলেন অমিত শাহ৷ তাঁর পাশে বসা রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষকে একাধিক বার তিনি অসন্তোষ প্রকাশ করেন৷ অমিতের প্রারম্ভিক বক্তব্য শেষ হওয়ার পর সাংবাদিকরা এক মুহূর্ত সময় নষ্ট না করে তাকে প্রশ্ন ছুঁড়তে থাকেন৷ বিরক্ত অমিত পাশে বসা রাজ্য সভাপতিকে বলেন, এক এক করে (সাংবাদিকদের) নাম বলুন না …৷ এরপর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘কম সে কম, প্রেসবার্তাতে তো ডেমোক্রেসি রাখুন৷ তৃণমূলের কালচার এখানে আনছেন কেন …৷’’

প্রসঙ্গত, সাংবাদিক সম্মেলন শুরু হওয়ার কিছু পরেই অমিত জানান, রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এক এক করে সাংবাদিকদের নাম জানাবেন৷ সাংবাদিকরা প্রশ্ন করবেন৷ কিন্তু তা শুরু থেকেই হয়নি৷ দিলীপবাবু সাংবাদিকদের হাতের ইশারায় প্রশ্ন করার ইঙ্গিত করলেও সাংবাদিকরা নিয়ম না মেনেই প্রশ্ন ছুঁড়তে থাকেন৷ বিজেপির পক্ষ থেকে যারা অনুষ্ঠান আয়োজনের দায়িত্বে ছিলেন তারাও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারছিলেন না৷ অমিত শাহ দিলীপ ঘোষকে দ্বিতীয়বার কটাক্ষের সুরে বলেন, ‘‘নাম বলো না ভাই …৷’’

ছবি-মিতুল দাস।

এরপরই বিজেপির নেতারা সংবাদমাধ্যমের নাম ধরে ধরে সাংবাদিকদের প্রশ্ন করার সুযোগ দেন৷ তবে ততক্ষণে প্রশ্ন ছোঁড়াছুড়ি দেখে রীতিমতো তেতে উঠেছেন অমিত৷ এক সাংবাদিককে তিনি বলেন, ‘‘আপনার প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি৷ আপনার সঙ্গে বিতর্ক করতে চাই না৷’’ এর মাঝে এনআরসি নিয়ে এক সাংবাদিকে প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে অমিত বলেন, ‘‘মিডিয়াও (এনআরসি-এর ব্যাপারে) ভয়কে কম করুক৷ আমার কথা ‘ইনভার্টেড কমা’তে (জনগণের কাছে) পৌছে দেবেন৷ ভয় বাড়াবেন না ’’

এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, রাজ্যে সমান্তরাল সরকার চলছে৷ দুই অফিসারকে দিল্লি থেকে বাংলায় পাঠানো হয়েছে৷ আমরা বদলা নেব৷ আপনার বক্তব্য কী?’’ ওই সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে অমিত শাহ বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন জিতেছিলেন অনেক বেশি অফিসার ট্রান্সফার হয়েছিল৷ এর থেকেও বেশি অফিসারকে বিশেষ পর্যবেক্ষক করে আনা হয়েছিল৷ তৃণমূলের গুন্ডাগিরি রিগিং আটকানো হলেই ওর মনে হয়েছে সমান্তরাল সরকার চলছে৷ বাংলায় যখন পরিবর্তন হয়েছিল তখন কমিশন আপনাকে নিরাপত্তা দিয়েছিল৷ এখন আপনার মনে হচ্ছে সমান্তরাল সরকার চলছে৷ সাংবাদিকদেরও ‘ফ্যাক্ট’এবং ‘ফিগার’সামনে আনা করা উচিত৷ তৃণমূল ‘স্পনসর্ড’ প্রশ্ন করবেন না৷’’

শেষের দিকে প্রশ্নে মেজাজ হারান অমিত শাহ৷ এক সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন বিজেপি ১৫০ এর বেশি আসন পাবে না৷ জবাবে অমিত জানান, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কী ভাবে হিসাব করলেন? তিনি বাংলার বাইরে কোন রাজ্যে গিয়েছেন৷ আমার মনে হয় (সাংবাদিক) বন্ধুরা আপনারা প্রশ্নকে অতিরঞ্জিত করছেন৷ অনেক প্রশ্ন-উত্তর (আজ) হয়েছে৷ ধন্যবাদ৷’’ এরপর সাংবাদিক সম্মেলন ছেড়ে বেরিয়ে যান তিনি৷