স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: বাংলায় এসে এনপিআর ও এনআরসি নিয়ে বিজেপিকে নিশানা করলেন বাম যুব নেতা কানহাইয়া কুমার৷ কটাক্ষ করে বললেন, অমিত শাহর অবস্থা একদিন নীরব মোদীর মত হবে৷ তাঁকেও দেশ ছেড়ে পালাতে হবে৷

কানহাইয়া বলেন, ”এক সময় ইংরেজ শাসনের অস্ত যাবে কেউ কি কখনও ভেবেছিল ? কিন্তু আমরা ইংরেজ শাসনের হাত থেকে স্বাধীন হয়েছি। অমিত শাহ বলছেন সিএএ নিয়ে তিনি পিছু হঠবেন না। কিন্তু অমিত শাহকে এই কালা কানুন প্রত্যাহার করতেই হবে।”

তিনি আরও বলেন, ”আগামী এপ্রিল মাসে যখন এনপিআরের জন্য আপনার বাড়িতে সরকারি লোক আসবে, আগে তাঁদের বলবেন ফর্মের সঙ্গে ১৫ লক্ষ টাকা সঙ্গে নিয়ে আসবেন। না হলে আসবেন না। সাধারন মানুষ যদি জোট বেঁধে প্রতিবাদ করলে ওরা কালা কানুন বাতিল করতে বাধ্য হবে। আর অমিত শাহকে একদিন নীরব মোদীর মত দেশ ছেড়ে বিদেশে পালাতে হবে। এদেশ আমার, আপনার, সবার। এখানে আমরা সবাই দেশের নাগরিক। তাই বিজেপি সরকারের কালা কানুন, এনপিআর ও এনআরসি’কে ছুঁড়ে ফেলে আমরা আজাদি নিয়েই ছাড়ব।”

উত্তর ২৪ পরগনার বারাকপুরে এনআরসি, এনপিআর এবং সিএএ বিরোধী প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই অভিমতই জানালেন সিপিআইয়ের তরুণ নেতা কানহাইয়া কুমার। এদিনের প্রতিবাদ সভায় কানহাইয়া কুমার ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিম, তড়িৎ তোপদার, বাদশা মৈত্র, সন্ময় বন্দোপাধ্যায় সহ অন্যরা।

এই প্রতিবাদ সভায় নিজের বক্তব্যে প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিম বলেন,”সিএএ, এনপিআর ও এনআরসি’র বিরুদ্ধে মানুষ জোট বাঁধতে শুরু করেছে। আসন্ন ২৬ শে জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন একজোট হয়ে মানুষ পথে নামবে। প্রজাতন্ত্র দিবস মানে নেতাদের বক্তৃতা শোনা নয়, প্রজাতন্ত্র দিবসে আমরা সবাই রাজা রাজার রাজত্বে। শুধু কলেজ, বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা নয়, সিএএ, এনপিআর, এনআরসি’র বিরুদ্ধে জোট বাঁধছে সাধারন মানুষ। আগামী ৩০ শে জানুয়ারি মহাত্মা গান্ধীর মৃত্যুর দিন আমরা পথে নামব, শহিদ দিবস পালন করব। বিজেপি সরকারের কালা কানুন প্রত্যাহারের দাবিতে আমাদের লাগাতার আন্দোলন চলবে।”

বারাকপুরে দেবশ্রী সিনেমা হলের সামনে প্ল্যাটফর্ম ফর এডুকেশন, লিটারেচার, কালচারের উদ্যোগে আয়োজিত, এক প্রতিবাদ সভার শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এই ভাষাতেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন প্রাক্তন সিপিএম সাংসদ মহম্মদ সেলিম।