কলকাতা: কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর অভিযোগের পাল্টা জবাব দিলেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে কোনও তথ্য দেয়নি বলে রবিবার রাজ্যকে বিঁধেছিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সিতারামন। সেই বক্তব্যেরই তীব্র বিরোধিতা করেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। নির্মলা সীতারমনের উদ্দেশ্যে অমিত মিত্রের পাল্টা জবাব, ‘উনি যা বলছেন মিথ্যা বলছেন।’

করোনা মোকাবিলায় লকডাউনের জেরে দেশের বহু মানুষের পাশাপাশি ঘোরতর বিপাকে পড়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। ভিনরাজ্য থেকে নিজেদের রাজ্যে ফিরে অনেকেই কাজ না পেয়ে সংসার চালাতে পারছেন না।

এই পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে গরিব কল্যাণ যোজনা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কাজ হারানো পরিযায়ী শ্রমিকদের কেন্দ্রের এই বিশেষ প্রকল্পের মাধ্যমে কর্মসংস্থান দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনার জন্য বিহার, ঝাড়খন্ড, উত্তরপ্রদেশ, ওড়িশা, রাজস্থান এবং মধ্যপ্রদেশের ১১৬টি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

তবে কেন্দ্রের এই প্রকল্প থেকে বাদ পড়েছে বাংলা। গ্রামীণ কল্যাণ মন্ত্রকের সচিব জানান, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে ঘরে ফেরা পরিযায়ী শ্রমিকদের সম্পূর্ণ পরিসংখ্যান জানানো হয়নি, তাই কেন্দ্রের এই প্রকল্পে বাংলাকে যুক্ত করা যায়নি।

রবিবার এই একই দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। তিনিও জানান, পশ্চিমবঙ্গ সরকার পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে কোনও তথ্যই কেন্দ্রকে পাঠায়নি। সেই কারণেই পশ্চিমবঙ্গকে কেন্দ্রের এই নয়া প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত করা যায়নি।

যদিও কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর এই দাবিকে সর্বৈব মিথ্যা বলে বর্ণনা করেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী। অমিত মিত্র জানান, কেন্দ্রীয় সরকার দু’বার তথ্য চেয়েছিল। ২৩ জুন জেলাভিত্তিক তথ্য চাওয়া হয়। ওই দিনই কেন্দ্রকে তথ্য পাঠানো হয়। পরে ২৫ জুন ব্লকভিত্তিক তথ্য চেয়ে পাঠালে সেটাও পাঠানো হয়।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর দাবি প্রসঙ্গে অমিত মিত্র বলেন, ‘দেশের অর্থমন্ত্রী হয়ে উনি এই মিথ্যা বললেন কীভাবে? হয় উনি কোনও তথ্যই জানেন না। বা ওঁকে কেউ বলে দেয়নি।’ এমনকী না জেনে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের প্রসঙ্গে এহেন অভিযোগ তোলায় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও দাবি করেছেন অমিত মিত্র।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।