নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: সপ্তাহের শুরুটাই বিষাদময়৷ টলিপাড়া থেকে বলিপাড়া, শোকের রেশ ছেয়ে পরিবার থেকে ঘনিষ্ঠজনেদের মধ্যে৷ সোমবার সকালে প্রয়াত হন রুমা গুহ ঠাকুরতা৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত রোগে অসুস্থ ছিলেন তিনি। গত কয়েকদিন ধরে চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছিলেন না প্রবাদপ্রতিম অভিনেত্রী। গত মাস তিনেক ধরে ছেলে অমিত কুমারের বাড়িতেই ছিলেন।

কয়েকদিন আগেই কলকাতায় ফেরেন তিনি। মায়ের মৃত্যুর খবর ইতিমধ্যে পৌঁছে গিয়েছে অমিত কুমারের কাছে। পরিবার সূত্রে খবর, বিকেলেই কলকাতায় আসছেন অমিত কুমার। তিনি আসার পরই তাঁর মায়ের শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। কেওড়াতলা মহাশ্মশানে তাঁর অন্ত্যোষ্টি হওয়ার কথা৷

এদিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় মায়ের সঙ্গে একটি ছবি শেয়ার করে অমিত কুমার লিখেছেন- ‘বিদায় মা, তুমিই আমার শক্তি ছিলে, তোমাকে সবথেকে বেশি মিস করব, এবার থেকে কে আমাকে বাবু সোনা বলে ডাকবে, কিন্তু আমি তোমাকে স্বপ্নে দেখব, সে বিষয়ে আমি নিশ্চিত, RIP’

সোমবার ভোর রাতে বালিগঞ্জ প্লেসের বাড়িতে প্রয়াত হয়েছেন অভিনেত্রী-সঙ্গীতশিল্পী রুমা গুহ ঠাকুরতা। এদিনই সন্ধ্যায় তাঁর শেষকৃত্য হবে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকবার্তা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে তাঁকে ‘গার্ড অফ অনার’ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এদিকে রুমাদেবীর শেষযাত্রায় দলীয় কর্মীদের পা মেলানোর ডাক দিয়েছেন সিপিএম নেতা শ্যামল চক্রবর্তী৷

এদিন রুমাদেবীর মৃত্যুর খবর পেয়েই বালিগঞ্জ প্লেসে তাঁর বাড়িতে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, “আমি এর আগেও এই বাড়িতে এসে ওনার সঙ্গে গল্প করেছি৷ খুবই খারাপ লাগছে৷ আমরা ওনার পরিবারকে প্রস্তাব দিয়েছিলাম রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য করার জন্য, সেটা তাঁরা মেনে নিয়েছেন৷”

মৃত্যুর খবর শুনে অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় বলেন, “সবসময় হাসিমুখে থাকতেন রুমা৷ সবার সঙ্গে খুব ভাল ব্যবহার করতেন৷” অপর্না সেন বলেন, “ওঁর সঙ্গে আমার খুব ঘনিষ্টতা ছিল৷ উনি অপূর্ব সুন্দরী ছিলেন৷ সবচেয়ে আমার ভাল লাগত ওনার হাসিটা৷”

রুমা গুহঠাকুরতার প্রয়াণে শোকের ছায়া ভক্তমহলে৷