জয়পুর: আলওয়ার গণধর্ষণ ঘটনার রেশ এখনও মিলিয়ে যায়নি৷ তারই মাঝে ফের সামনে এল আরও তিনটি ধর্ষণের ঘটনা৷ তিনটিই ঘটেছে কংগ্রেস শাসিত রাজস্থানে৷ একটি ঘটেছে সেই আলওয়ারেও৷ পরপর ধর্ষণের ঘটনায় চাপে অশোক গেহলটের সরকার৷ রাজ্যে মহিলারা আদৌ নিরাপদ নন অভিযোগ তুলে তোপ দাগছে বিরোধীরা৷

আরও পড়ুন: বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নাবালিকাকে লাগাতার ধর্ষণ, অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী

গত ১৪ মে আলওয়ারের হাসরাউরা গ্রামে এক ১৫ বছরের নাবালিকাকে গণধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ৷ পরিবারের তরফে সদর পুলিশ থানায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে৷ সেখানে বলা হয়েছে, আত্মীয়ের বিয়েতে যোগ দিতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয় ওই নাবালিকা৷ অভিযুক্তরা সকলেই নাবালক৷ পরে বিষয়টি জানাজানি হতে এক অভিযুক্তকে পিটিয়ে মারা হয়৷

জেলার এসপি অনিল দেশমুখ জানান, দুই অভিযুক্তকে নির্যাতিতার পরিবারই ধরে ফেলে৷ কিন্তু তৃতীয় অভিযুক্ত পালিয়ে যায়৷ অপরদিকে দুই অভিযুক্ত ধরা পড়ার পর তাদের বেধড়ক পেটানো হয়৷ কয়েকঘণ্টা বাদে তাদের একজনের মৃতদেহ রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা যায়৷ থানায় দুটি অভিযোগ জমা পড়ে৷ একটি করে নির্যাতিতার পরিবার৷ অপরদিকে মৃত অভিযুক্তের পরিবার নির্যাতিতার পরিবারের বিরুদ্ধে পাল্টা খুনের অভিযোগ জানায়৷

অপরদুটি ঘটনাটি চুরুর ভানিপুরার ও ধোলপুরের খুর্দ গ্রামে৷ চুরুতে এক ছয় বছরের নাবালিকা পরিবারের এক সদস্যের লালসার শিকার হয়৷ শুক্রবার ওই নাবালিকাকে একটি নির্জন স্থানে নিয়ে যায় নাবালক এবং ধর্ষণ করে৷ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ অপরদিকে ধোলপুরে এক নাবালিকাকে ধর্ষণ করার অভিযোগে শনিবার পরভেস নামে ১৮ বছরের যুবককে গ্রেফতার করা হয়৷

আরও পড়ুন: হোটেলে অশ্লীল অবস্থায় ধরা পড়ল কলকাতার ২ মহিলাসহ তিন

এদিকে শনিবারই পুলিশ আলওয়ার গণধর্ষণ ঘটনায় চার্জশিট জমা দিয়েছে৷ গত ২৬ এপ্রিল স্বামীর সঙ্গে বাইকে করে যাওয়ার সময় গণধর্ষণের শিকার হন এক মহিলা৷ ঘটনার ভিডিও করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে৷