নয়াদিল্লি: গত কয়েকমাস ধরে চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে সীমান্তের অশান্তি। কাঁটাতারের দু’পার থেকে শুধুই গোলাগুলির শব্দ। কোনও বিরতি নেই। বরং বাড়ছে অশান্তি। এমন পরিস্থিতিতে এখন অঙ্ক কষতে শুরু করেছেন দেশের যুদ্ধ বিশেষজ্ঞরা। কারণ, যেভাবে পাকিস্তান অশান্তি বাড়িয়ে চলেছে তাতে অন্য গন্ধ পাচ্ছেন তাঁরা।

আগামী নভেম্বরে মেয়াদ শেষ হচ্ছে পাক সেনাপ্রধান রাহিল শরিফের। নওয়াজ শরিফ তারপর কি সিদ্ধান্ত নেবেন তা স্পষ্ট নয়। অনুমান করা হচ্ছে, নিজের মেয়াদ বাড়াতে কিংবা পরবর্তীতে একটা গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতেই এইভাবে অশান্তি জিইয়ে রাখছেন তিনি। এমনকি ভারতের মাটিতে হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কাও তৈরি হয়েছে। তাই মহড়া করার পাশাপাশি, অস্ত্রভাণ্ডার পূর্ণ করারও প্রস্তুতি নিচ্ছে কেন্দ্র।

সম্প্রতি একটি কমিটি তৈরি করা হয়েছে। যাতে রয়েছেন সার্ভিস ভাইস চিফ লেফট্যানেন্ট জেনারেল বিপিন রাওয়াত, এয়ার মার্শাল বিএস ধানোয়া ও ভাইস অ্যাডমিরাল কেবি সিং। ইতোমধ্যেই এই দলটি রাশিয়া ও ইজরায়েল ঘুরে এসেছে। ভারতে যেসব আর্টিলারি শেল, রকেট, মিসাইলের অভাব রয়েছে তা নিয়ে আলোচনাও হয়েছে এই দুই দেশের। মাত্র ২০ দিন পুরোমাত্রায় যুদ্ধ করার মত অস্ত্র রয়েছে বর্তমানে ভারতের হাতে। তবে সেগুলো সব অপারেশনের জন্য তৈরিও হয়। এই অস্ত্রভাণ্ডার দ্রুত পূর্ণ করার পরিকল্পনা চলছে।