বাগদাদঃ  বর্তমানে ইরানের মাটিতে কয়েক হাজার মার্কিন সেনা রয়েছে। আর সেনাবাহিনীর সেই উপস্থিতির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা নিয়ে ইরাকি সংসদে ভোটাভুটি হতে চলেছে। পাশ হতে পারে নয়া একটি বিল। আর সেই বিল পাস হলে ইরাকে মার্কিন সেনা আর থাকতে পারবে না।

বিলের খসড়ায় বলা হয়েছে- বিদেশি কোনও সেনা ইরাকি ভূখণ্ডে থাকতে পারবে না। আজ শনিবার সে দেশের সংসদে এই ভোটাভুটি হওয়ার কথা রয়েছে। বিলের বিশেষ উদ্দেশ্য হচ্ছে ইরাক থেকে মার্কিন সেনা বহিষ্কার করা। ২০০৩ সালে আমেরিকা ইরাকে আগ্রাসন চালায়।

আগ্রাসনের আগে আমরিকা ও তার মিত্ররা দাবি করেছিল যে, তৎকালীন স্বৈরশাসক সাদ্দামের কাছে গণবিধ্বংসী মারণাস্ত্র আছে এবং তা আমেরিকার বিরুদ্ধে ব্যবহারের পরিকল্পনা করছেন। আগ্রাসনের পর ২০১১ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধের সমাপ্তি ঘোষণা করে আমেরিকা এবং ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহার করে। কিন্তু প্রশিক্ষণ ও সামরিক যন্ত্রপাতি পরিচালনার নামে কিছু সেনা ইরাকে রেখে দেওয়া হয়।

এর বিরুদ্ধে গত বছরগুলোতে ইরাকের বহু রাজনীতিবিদ প্রশ্ন তুলে আসছেন যে, বিদেশি সেনা বিশেষ করে মার্কিন সেনা উপস্থিতির প্রয়োজনীয়তা কী? তারা ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহার করার জন্য মার্কিন সরকারের প্রতিও আহ্বান জানাচ্ছেন।