তেহরান: ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি সম্প্রতি পারস্য উপসাগরের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বিশাল সামরিক মহড়া চালিয়েছে। সেই মহড়ার বার্তা ইজরায়েল ও আমেরিকা ভালোভাবে বুঝতে পেরেছে। আইআরজিসি’র মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রামেজান শারিফের রবিবার তেহরানে দেওয়া এক বক্তৃতায় এমন মন্তব্য উঠে এসেছে।

জেনারেল শারিফ জানিয়েছেন, ইরানের জাতীয় স্বার্থবিরোধী যে কোনও আঘাতের সমুচিৎ প্রত্তুত্তর দেওয়াটাই হল এদেশের প্রতিরক্ষানীতির অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

তাঁর বক্তব্য, পারস্য উপসাগরে অনুষ্ঠিত সাম্প্রতিক মহড়ার আরও প্রমাণ করেছে, অস্ত্র ও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জ্ঞান-বিজ্ঞান ও সামরিক ক্ষেত্রে ইরানের অগ্রগতি ব্যাহত করা যায়নি।

আইআরজিসি’র মুখপাত্র আরও জানান, এই মহড়ার মাধ্যমে ইরান মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিকে এই বার্তা দিল এই অঞ্চলের নিরাপত্তা রক্ষা করার জন্য আমেরিকার মতো বাইরের শক্তির প্রয়োজন নেই। বরং পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলি নিজেরাই এখানকার নিরাপত্তা রক্ষা করতে সক্ষম।

গত ২৮ থেকে ৩১ জুলাই পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এই মহড়ায় নজিরবিহীনভাবে ভূগর্ভ থেকে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়েছে আইআরজিসি। এর পাশাপাশি ভূমি থেকে সমুদ্রে এবং সমুদ্র থেকে সমুদ্রে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে মহড়া চালানো হয়েছে।

একই সঙ্গে কল্পিত শত্রুর রাডারে এবং বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ সফল হামলা ছিল এই মহড়ার একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও