লখনউ: ফের ভাঙা হল দলিত আইকন ভিমরাও রামোজি আম্বেদকরের মূর্তি। ঘটনাস্থল আবারও সেই উত্তর প্রদেশের আজমগড়।

ঘটনাটি ঘটেছে আজমগড় জেলার কপতগঞ্জ থানা এলাকার রাজা পাত্তি গ্রামে। শনিবার সকালের দিকে গ্রামের সংবিধান প্রণেতা আম্বেদকরের ভাঙা মূর্তি দেখতে পান গ্রামবাসীরা।

খুব স্বভাবিকভাবেই বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই উত্তেজনা ছড়ায় গ্রামে। খবর পেয়েই পরিস্থিতি সামাল দিতে আসরে নামে পুলিশ। গ্রামবাসীদের ক্ষোভ সামাল দিতে তড়িঘড়ি বসানো হয় নতুন মূর্তি। নতুন মূর্তি বসানোর কাজ পুলিশ নিজেই উদ্যোগ নিয়ে করে ফেলে।

এলাকায় উত্তেজনা ছড়াতেই দুষ্কৃতিরা এই মূর্তি ভাঙা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কপতগঞ্জ থানার পুলিশ ইনস্পেক্টর দীননাথ পাণ্ডে। তাঁর কথায়, “এই ঘটনায় কোনও ব্যক্তি লিখিত অভিযোগ দায়ের না করায় এফআইআর করা যায়নি। তবে বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি।”

এই নিয়ে গত পাঁচ মাসে তিন বার আম্বেদকরের মূর্তির উপরে হামলা চলল উত্তর প্রদেশে। যার মধ্যে দু’টি ঘটনাই আজমগড় জেলার। মার্চ মাসের ১০ তারিখে আজমগড় জেলা থেকেই শুরু হয়েছিল প্রথম ঘটনা। সেই ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এরপর এপ্রিল মাসে বালিয়া জেলায় ঘটে দ্বিতীয় ঘটনা। যদিও সেই ঘটনায় এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তির নামে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.